জেলায় করোনা হেল্পলাইন, রোগী সহায়তা কেন্দ্র আগামীকাল থেকে, টেস্টের গেরোয় জেনারেল ওয়ার্ডে ‘মৃতদেহ’ পড়ে দু’দিন, খতিয়ে দেখার আশ্বাস অধ্যক্ষের

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ২ অক্টোবর: পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় চালু করা হচ্ছে, করোনা সংক্রান্ত বিশেষ হেল্পলাইন। করোনা অতিমারী’র পরিস্থিতিতে সংক্রমিত রোগীর পরিজনেরা নানা বিষয়ে দুঃশ্চিন্তায় থাকেন। আশঙ্কায় থাকেন করোনা আক্রান্ত রোগী নিজেও। সম্প্রতি, জেলার করোনা হাসপাতালেল চিকিৎসা পরিষেবা নিয়েও নানা অভিযোগ করেছেন, বিভিন্ন রোগীর আত্মীয়-স্বজন থেকে ওয়াকিবহাল মহল। এছাড়াও, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া কিংবা হোম আইশোলেশনে থাকার বিষয়গুলি নিয়েও মানুষের মনে চিন্তা-ভাবনার অন্ত নেই! তাই, সমস্ত বিষয়গুলিই ত্রুটি-মুক্ত করার উদ্যোগ নেওয়ার সাথে সাথে, এবার এই বিষয়টির উপরও আলোকপাত করা হয়েছে, জেলা প্রশাসনের তরফে। জেলাশাসক ডঃ রশ্মি কমল তথা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এবং জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের সহযোগিতায় নতুন হেল্পলাইন চালু করা হচ্ছে আগামীকাল থেকেই। এই হেল্পলাইন নম্বরে (দুটি মোবাইল নম্বরে) ফোন করে, করোনা রোগী কিংবা রোগীর আত্নীয়-পরিজন কিংবা সাধারণ মানুষ পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার করোনা সংক্রান্ত তথা চিকিৎসা সংক্রান্ত যে কোনো বিষয়ে খোঁজ খবর নিতে পারবেন বলে জানা গেছে। এই নম্বর দুটি হল: ৮৬৯৫৫০০৩৬০/৮৬৯৫৫০০৩৫০। অপরদিকে, শালবনী করোনা হাসপাতালেও আগামীকাল থেকে রোগী সহায়তা কেন্দ্রের সূচনা হয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন, জেলার স্বাস্থ্য আধিকারিকবৃন্দ। এই রোগী সহায়তা কেন্দ্রের মাধ্যমে, শালবনী করোনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন যেকোনো রোগীর চিকিৎসা সংক্রান্ত বা যেকোনো সুবিধা-অসুবিধার বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া যাবে বলে জানা গেছে, জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর ও হাসপাতাল সূত্রে। ফোন করেও, এই রোগী সহায়তা কেন্দ্রের মাধ্যমে, বাড়ি থেকেই চিকিৎসাধীন রোগী’র খোঁজ-খবর নেওয়া সম্ভব বলেও জানা গেছে। শালবনী করোনা হাসপাতালের রোগী সহায়তা কেন্দ্রের নম্বরটি হল : ৯৮৮৩১৩৩০২০।

thebengalpost.in
কোভিড হেল্পলাইন (পশ্চিম মেদিনীপুর) :

.
thebengalpost.in
শালবনীতে রোগী সহায়তা কেন্দ্র আগামীকাল থেকে :

এদিকে, মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে সাধারণ রোগীদের (পুরুষ) জন্য নির্ধারিত আচার্য্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায় ওয়ার্ডে (নিউ বিল্ডিং বা আইসি বিল্ডং) গত দু’দিন ধরে একটি ‘মৃতদেহ’ (করোনা সন্দেহভাজন) পড়ে থাকা নিয়ে ভর্তি থাকা রোগী এবং রোগীর পরিজনদের মধ্যে ক্ষোভ ছড়ায়। আজ (২ অক্টোবর) সকালে, তিনদিনের মাথায় যখন একইভাবে মৃতদেহটি পড়ে থাকে এবং তা থেকে রীতিমতো দুর্গন্ধ ছড়ায় বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ভর্তি থাকা রোগীর পরিজনেরা! রোগীর পরিজনেরা খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা পাঠানো হয়েছে, কিন্তু, রিপোর্ট না আসাতেই ওখানে মৃতদেহ রাখা আছে! কিন্তু, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নিয়ম অনুযায়ী, ওই সমস্ত মৃতদেহ, পৃথক জায়গায় সংরক্ষণ করে রাখার কথা। তা না করে, শুধুমাত্র একটি সাদা কাপড় চাপা দিয়ে রাখার ফলে, জীবাণু ও দুর্গন্ধ দুইই ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা! এ নিয়ে ওই ওয়ার্ডের পক্ষ থেকে কোন সদুত্তর পাওয়া যায়নি। তবে, এই সমস্তের মধ্যেই সকাল ১১ টা নাগাদ মৃতদেহ টি সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। জানা যায়, তাঁর করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। এই বিষয়ে, মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডাঃ পঞ্চানন কুন্ডু জানান, “মৃতদেহ সংরক্ষণ করে রাখার জন্য, মর্গের কাছে আমাদের পৃথক জায়গা করা হয়েছে। ওখানেই মৃতদেহ রাখা হয়, আপনারাও তা জানেন। তবে, এক্ষেত্রে নিশ্চয়ই কোন সমন্বয়ের অভাব হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই, সুস্থ রোগীদের অস্বস্তি হওয়ারই কথা! পরবর্তী সময়ে, এই ধরনের ঘটনা যাতে না ঘটে, সেই বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আসলে, কোভিড পরিস্থিতিতে কিছু কিছু অনভিপ্রেত ঘটনা ঘটে যাচ্ছে, অবশ্যই যা ঘটা উচিৎ নয়। আমরা বা সকল স্বাস্থ্যকর্মীই চেষ্টা করছেন, তা সত্ত্বেও কিছু কিছু ভুল-ত্রুটি তো হচ্ছেই।” রোগী ভর্তির আগেই, যে কোনো রোগীর র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টের ব্যবস্থা নিয়েও অনেকের প্রশ্ন ছিল। সে নিয়েও অধ্যক্ষ জানিয়েছেন, “আমরা রোগী ভর্তির শুরুতেই র‌্যাপিড অ্যান্টিজেনের ব্যবস্থা করেছি। এক্ষেত্রেও, কিছু কিছু ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। তবে, উপসর্গ থাকলে যত দ্রুত সম্ভব তা করা হচ্ছে। বাকিদের ক্ষেত্রেও হচ্ছে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেরি হয়ে যাচ্ছে। আমরা সেই বিষয়টিও সমাধান করার চেষ্টা করছি।”

thebengalpost.in
মেদিনীপুর মেডিক্যালের আচার্য্যপ্রফুল্ল চন্দ্র ওয়ার্ডে ২ দিন ধরে পড়ে থাকা মৃতদেহ :

.
.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে