অজানা জ্বরে মৃত্যু চন্দ্রকোনায়, করোনা রিপোর্টের অপেক্ষায় প্রশাসন, পরিবার ও গ্রামবাসীরা

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদক, চন্দ্রকোনা, ১ আগস্ট : পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনা ২ নং ব্লকের কুঁয়াপুর ৪ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের ধামকুড়িয়া গ্রামের, বাদল পাত্র (৫৫) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে অজানা জ্বরে। বেশ কিছুদিন ধরে ভোগার পর শনিবার সকালে মৃত্যু হয় ওই ব্যক্তির। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে, ঘাটাল মহকুমা হাসপাতালে পাঠিয়েছে লালারস সংগ্রহের জন্য। রিপোর্ট আসার পরই সৎকার করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানা যায়।

thebengalpost.in
চন্দ্রকোনায় অজানা জ্বরে মৃত্যু :

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, পরিবার ছেড়ে অস্থায়ী ছাউনি করে দীর্ঘ ১০-১৫ বছর ধরে ধামকুড়িয়া এলাকায় বসবাস করতেন ওই ব্যক্তি। পেশায় ছিলেন রাজমিস্ত্রি। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বেশকয়েকদিন ধরেই জ্বরে ভুগছিলেন ওই ব্যক্তি। পরিবার থেকে দূরে থাকায়, দেখাশোনা ও চিকিৎসার অভাবে শনিবার সকালে মৃত্যু হয় ওই ব্যক্তির। যেহেতু জ্বরে ভুগে মৃত্যু হয়েছে, পুলিশ ঝুঁকি না নিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে করোনা পরীক্ষার জন্য ঘাটাল হাসপাতালে পাঠায়। পুলিশের তরফে পরিবারকে জানানো হয়, শনিবার করোনা পরীক্ষার পর রিপোর্ট পজিটিভ এলে মৃতদেহ সরকারি ভাবে দাহ করা হবে। রিপোর্ট নেগেটিভ এলে, পরিবার চাইলে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হবে। পুলিশ সূত্রে আরো জানা যায়, ওই ব্যক্তির আসল বাড়ি চন্দ্রকোনা ২ নং ব্লকের বসনছোড়া ৩ নং গ্রাম-পঞ্চায়েতের জামদান গ্রামে। জামদান গ্রামে তিন ছেলে ও স্ত্রী থাকলেও তাদের ছেড়ে ধামকুড়িয়া গ্রামে চলে এসে তিনি অস্থায়ী ছাউনি করে বসবাস করতেন।

.
.

.
.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে