পর পর ৩ দিন ৫০০’র ঘরেই পশ্চিম মেদিনীপুরের সংক্রমণ! জেলায় ৫২০, শহর মেদিনীপুরে সামান্য কমলেও গ্রামীণ এলাকায় বাড়ল

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ২২ মে: কিছুটা কমতে শুরু করেছিল জেলার করোনা সংক্রমণ! গত ১৫ ই মে থেকে ১৮ ই মে পর্যন্ত জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে যে রিপোর্ট পাওয়া গিয়েছিল, তাতে পশ্চিম মেদিনীপুরের দৈনিক করোনা সংক্রমণ ছিল যথাক্রমে— ৪৮২, ৫০১, ৪৭২ ও ৪০৮। অপরদিকে, গত ১৯ শে মে থেকে ২১ শে মে (শুক্রবার) পর্যন্ত যে রিপোর্ট পাওয়া গেছে, তাতে দৈনিক সংক্রমণ হল— ৫১৬, ৫৬১ ও ৫২০ (শুক্রবার)। সবমিলিয়ে, গত ৭ দিনে জেলায় মোট করোনা সংক্রমিত হলেন- ৩৪৬০ জন। গত চব্বিশ ঘণ্টায় জেলায় নতুন করে যে ৫২০ জন করোনা আক্রান্ত হলেন, তাঁদের মধ্যে আরটি-পিসিআরে পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে ২৪৯ জনের, র‍্যাপিড অ্যান্টিজেনে রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে ২৪২ জনের এবং বেসরকারি হাসপাতালের ট্রুন্যাটে পজিটিভ এসেছে ২৯ জনের। গত চব্বিশ ঘণ্টায় জেলার করোনা হাসপাতাল গুলিতে মৃত্যু হয়েছে মোট ৯ জনের। শালবনী করোনা হাসপাতালে ৪ জনের, ঘাটাল মহকুমা হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ৩ জনের, ডেবরা গ্রামীণ হাসপাতালের সেফ হোমে ১ জনের এবং মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজের করোনা ইউনিটে ১ জনের। গত চব্বিশ ঘণ্টায় জেলার করোনা হাসপাতাল গুলি থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন মোট ৪৯ জন। সর্বাধিক ২১ জন শালবনী থেকে সুস্থ হয়েছেন। এছাড়াও, হোম আইশোলেশন থেকে শতাধিক মানুষ করোনা মুক্ত ও সুস্থ হয়েছেন বলে জানা গেছে।

thebengalpost.in
করোনা গ্রাফ ফের উর্ধ্বমুখি :

মোবাইলে খবর পেতে জয়েন করুন
Whatsapp Group এ

গত চব্বিশ ঘণ্টায় মেদিনীপুর শহর ও সংলগ্ন এলাকায় ফের শতাধিক মানুষ করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। তবে, গত ২ সপ্তাহ ধরে জেলা শহরে যে উর্ধ্বমুখি করোনা গ্রাফ ছিল, শুক্রবার সেই গ্রাফ কিছুটা নিম্নমুখী! শেষ ৩ দিনেও জেলা শহর ও সদর ব্লক মিলিয়ে সংক্রমিত হয়েছিলেন যথাক্রমে- ১৩০, ১৪২ ও ২২৪ (বৃহস্পতিবার)। সেখানে শুক্রবার ১০২! লকডাউনের সুফল মিলতে শুরু করেছে বলেই মনে করা হচ্ছে। তবে, আগামী কয়েকদিনে চিত্রটা আরও পরিস্ফুট হতে পারে। গত চব্বিশ ঘণ্টায় মেদিনীপুর সদর ব্লকের গোলাপীচকে ৫ জন ছাড়াও গোপগড়, খয়রুল্লাচকে ২ জন করে, পাথরঘাটা, কালগাঙ সহ মোট ১২ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। অপরদিকে, মেদিনীপুর শহরের চিত্রটা মোটামুটি এরকম— সুকান্তপল্লী ৬, রাঙামাটি ৫, কুইকোটা ৫, আবাস ৫, মিয়াবাজার ৫, শরৎপল্লী ৩, হবিবপুর ৩, মিয়াবাজার ৩, বিধাননগর ৩, রবীন্দ্র নগর ৩, নতুনবাজার ৩, তাঁতিগেড়িয়া ২, পাটনা বাজার ২, সিপাই বাজার ২ সুজাগঞ্জ ২, মহতাবপুর ২, চিড়িমারসাই ২, কেরানীচটি ২, পুলিশ লাইন ২ এবং এসডিও অফিসে ২ (২ জন কর্মী) জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। এছাড়াও, শহরের রাজাবাজার, কোতবাজার, কেরানীটোলা, সূর্যনগর, ধর্মা, তোলাপাড়া, তলকুই, সেখপুরা, মিত্র কম্পাউন্ড, নবীনাবাগ, বড় আস্তানা ও মৃণালপল্লীতে এক বা একাধিক জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ সূত্রে প্রায় ৫ জনের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে গত চব্বিশ ঘণ্টায়।

thebengalpost.in
দৈনিক মৃত্যু কমছেনা কিছুতেই :

অন্যদিকে, খড়্গপুর শহরে মোট করোনা সংক্রমিত হয়েছেন, ৮৩ জন। এর মধ্যে, রেল সূত্রে ১৩, আইআইটি সূত্রে ৪, গ্রামীণে ২ এবং শহরে ৬৪ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন গত চব্বিশ ঘণ্টায়। শালবনী ব্লকে নতুন করে ২৮ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। এর মধ্যে, শালবনী ১৭, রাঙামেটিয়া ৩, ডাঙরপাড়া ২, নাদারিয়া, মেটাল, ভাদুতলা, সাতপাটি, ছাতনি, যাত্রা বিষ্ণুপুরে ১ জন করে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। গড়বেতার ৩ টি ব্লক মিলিয়ে ৪৮ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। বেলদা (নারায়ণগড়) এলাকায় ৫০ জন এবং দাঁতনের ২ টি ব্লক মিলিয়ে ২৩ জন‌ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়াও, কেশিয়াড়িতে ৪ জন এবং কেশপুর ব্লকে ২ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। অন্যদিকে, ডেবরা, সবং ও পিংলায় যথাক্রমে- ৪ জন, ৮ জন ও ৬ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। গত চব্বিশ ঘণ্টায় ঘাটাল মহকুমায় ৮৭ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। এই মুহূর্তে লেভেল ফোর শালবনী করোনা হাসপাতাল (শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত ৮১ জন চিকিৎসাধীন ছিলেন, ২০০ টি বেডে) সহ জেলার করোনা হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত সংখ্যক শয্যা আছে বলে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর। তবে, জরুরি ভিত্তিতে ডেবরা ও ঘাটালে করোনা হাসপাতাল তৈরি হচ্ছে।‌ সবংয়ে তৈরি হচ্ছে ২০ শয্যা বিশিষ্ট সেফ হোম।

আরও পড়ুন -   ফের সংক্রমণ বেড়ে মেদিনীপুরে ২৭, খড়্গপুরেও ২৭, জেলায় ১৫৪! আরো বাড়ল সুস্থতার হার, কমল মৃত্যুর হার