স্বীকৃতি না পেয়েও, আত্ননির্ভর ভারতে ‘সবকা সাথ সবকা বিকাশ’ এর একমাত্র প্রতীক সেই গান্ধী মহারাজ : বিশেষ প্রতিবেদন

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট বিশেষ প্রতিবেদন, শিবদেব মিত্র, ২ অক্টোবর: বিতর্ক তাঁর পিছু ধাওয়া করতে কসুর না করলেও, তাঁকে বিচলিত করতে পারেনি! বরং, ‘দুঃখেষ্বনুদ্বিগ্নমনা, সুখেষু বিগতস্পৃহঃ’, মুনিপ্রবর, মুণ্ডিতমস্তক, শীর্ণদেহী, হাতে লাঠি, চাদর মোড়া, দৃঢ়চেতা, ‘বার্ধক্য হীন ‘ যুবক ঋষিপুরুষটির অহিংস, আত্মমোক্ষকামী মাতৃ আরাধনা ব্রতে জাতি সভ্যতার প্রেক্ষাপটে শাশ্বত, সনাতন আশ্রয় অনুভব করেছে ভারতবাসী! দেশ তাঁকে পরশ-পাথর মেনেছে সংকটে, উচ্ছ্বাসে ও বিশ্বাসে। তবে ‘রত্ন’ মানতে দ্বিধাগ্রস্ততা অনুভব করেছে!

thebengalpost.in
মহাত্মা গান্ধী (১৫২ তম জন্মজয়ন্তী) :

.
.

রাষ্ট্র তাঁর অবিস্মরণীয় স্মৃতি’কে রাষ্ট্রিক প্রথায় উদযাপন করেছে। আবেগ দিয়ে বিবেককে স্তব্ধ করেছে। তাঁকে মান্যতা দিয়েছে, তবে তাঁর পদাঙ্ক অনুসরণে বিরত থেকেছে। শিক্ষা’য় (বুনিয়াদি শিক্ষা), শিল্পে, স্বাস্থ্যে, সমাজ ভাবনা’য় বা দেশ নির্মাণে (স্বচ্ছ ভারত হোক কিংবা আত্ননির্ভর ভারত!) দেশ তাঁকে আজো স্মরণ করে, তবে সম্মান করেনা! ‘জাতির জনক’ বলতে দ্বিধা বোধ করে; অবান্তর, অবাস্তব ভাবনার জনক আখ্যায় আখ্যায়িত করে উৎফুল্ল হয়! পরিস্থিতির সঙ্গে তিনি আপোস করেননি। মনে প্রাণে বিশ্বাস করতেন, নূন্যতম আপোস যদিও বা করা চলে, তবে তা নীতির সঙ্গে। চলতি হাওয়ার সাথে নয়! আর সংগ্রাম হল, বাস্তবটাকেই আদর্শের পরিপূরক করে তোলা! রাজনীতি করা আর ব্যক্তিসত্ত্বার পারমার্থিক বিকাশ সাধনের মাঝে তফাত মানতেন না। মানতেন, জন-পরিসরের মাঝে থেকেও আত্মিক ও সার্বিক অহিংসা সাধন, সত্যবাদিতা ও লোভ সংবরণের মাধ্যমে মোক্ষ লাভ সম্ভব!

thebengalpost.in
নেতাজী’র সাথে গান্ধী :

.

পাশ্চাত্য দার্শনিক অ্যাডাম স্মিথ প্রমুখের মনুষ্য সভ্যতায় স্বার্থপরতা ও স্বার্থ সন্ধানের প্রতি স্বীকৃতির উল্টোপিঠে দাঁড়িয়ে, আত্মিক বিকাশ, ব্যক্তি উৎকর্ষ সাধন ও মোক্ষ লাভের পারমার্থিক চেতনাকে স্বীকৃতি দিয়ে, জীবনচর্যায় সত্য-অহিংসা ও সরলতার প্রতিধ্বনি তুলেই, তিনি ‘মহাত্মা’। একক ও স্বতঃপ্রদীপ্ত আলোকবর্তিকা। অহিংসাকে নিশ্চিত করলে তবেই সম্ভব উন্নয়ন! যেন তেন প্রকারেণ চটজলদি উন্নয়নে ছিলেন নিমরাজি। আক্ষরিক অর্থেই চেয়েছিলেন “সবকা সাথ, সবকা বিকাশ।” সংসদীয় রাজনীতির ছিলেন ঘোরতর বিরোধী! বিজ্ঞানমনস্কতার অভাব, স্বেচ্ছাপ্রকাশ ব্যসন, একগুঁয়েমি, আলস্য, অবাস্তবের প্রতি টান প্রভৃতির তীর তাঁকে বারবার বিদ্ধ করলেও ভারতীয় উপমহাদেশের রাজনৈতিক কুরুক্ষেত্রে তিনিই ‘ভীষ্ম’! তিনিই মহাত্মা! শরশয্যাকে উপেক্ষা করে, সার্ধশত বর্ষ অতিক্রম করেও (১৫২ তম জন্মজয়ন্তী) ভারতাত্মার এক এবং একমাত্র ধর্মনিরপক্ষ, গণতান্ত্রিক, আদর্শ, অভিভাবকোচিত অবিসংবাদী মুখ- আজও সেই গান্ধী মহারাজ!

thebengalpost.in
‘বিশ্বকবি’ গুরুদেব রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে মহাত্মা গান্ধী :

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে