নতুন আশার আলো মেদিনীপুরে! আয়ুশ হাসপাতালে ‘করোনা’র পরিবর্তে এবার আয়ুর্বেদ-হোমিও সহ আয়ুশ চিকিৎসা

বিজ্ঞাপন

মণিরাজ ঘোষ, মেদিনীপুর, ১৫ ডিসেম্বর: সবথেকে বড় আশার আলো করোনা সংক্রমণ কমছে! কমছে কোভিড নাইনটিনের ভয়াবহতাও। সুস্থতার হার ৯৬ শতাংশ, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায়। সর্বশেষ (১৪ ই ডিসেম্বর) রিপোর্ট অনুযায়ী, লেভেল ফোর শালবনী, মেদিনীপুর মেডিক্যাল এইচডিইউ, ঘাটাল এবং খড়্গপুর মিলিয়ে চিকিৎসাধীন মাত্র ৪০ জন। হোম আইশোলেশনে আরও ৪০০ জনের কাছাকাছি! গত সাত দিনে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন মাত্র ৩০৩ (৫৪, ৫২, ৬০, ৬২, ৪২, ১৩, ২০) জন। এই পরিস্থিতিতে, আয়ুশ সেফ হোম (আয়ুশ স্যাটেলাইট) এবং ডেবরা সেফ হোমের পর, এবার লেভেল থ্রি (প্রথমে ছিল লেভেল ওয়ান) আয়ুশ হাসপাতালেও করোনা চিকিৎসা পরিষেবা বন্ধ হচ্ছে। প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামীকাল (১৬ ডিসেম্বর) থেকে আয়ুশে করোনা চিকিৎসা পরিষেবা বন্ধ করার কথা থাকলেও, গত কয়েকদিন ধরেই এই হাসপাতাল রোগী-শূন্য। ফলে, করোনা চিকিৎসা ইতিমধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে। জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, আয়ুশের করোনা ল্যাবরেটরি বা সোয়াব কালেকশন ল্যাবটিই শুধুমাত্র চালু থাকবে। হাসপাতালের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী’দের অন্যত্র স্থানান্তরিত করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। তবে, বর্তমান পরিস্থিতিতে অন্য একটি আশার খবরও পাওয়া গেছে, জেলা প্রশাসন তথা জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে। আয়ুশ (AYUSH) হাসপাতালে এবার থেকে আয়ুশ চিকিৎসাই হবে। জেলাশাসক ডঃ রশ্মি কমলের নেতৃত্বে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা প্রশাসন সেই উদ্যোগ গ্রহণ করতে চলেছে। জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ নিমাই চন্দ্র মন্ডল, উপ মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক (১) ডাঃ সৌম্যশঙ্কর সারেঙ্গী সহ জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরও এই বিষয়ে পূর্ণ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।

thebengalpost.in
মেদিনীপুর আয়ুশ হাসপাতাল :

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আয়ুর্বেদ, যোগ ও প্রাকৃতিক চিকিৎসা, ইউনানি, সিদ্ধা ও হোমিওপ্যাথি এই পাঁচটি প্রাচীন চিকিৎসা পদ্ধতিকে একত্রে আয়ুশ (ইংরেজিতে, AYUSH is an acronym for Ayurveda, Yoga and Naturopathy, Unani, Siddha and Homeopathy) বলা হয়। পূর্বে, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকলেও, বর্তমানে এই বিষয়ক পৃথক কেন্দ্রীয় ‘আয়ুশ মন্ত্রণালয়’ (Ayush Ministry) গড়ে তোলা হয়েছে। বর্তমানে, এই দপ্তরের স্বাধীন ভারপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী হলেন শ্রীপদ নায়েক (Shripad Naik)। এই মন্ত্রকের তরফে, রাজ্যে গড়ে তোলা হয়েছে দু’টি ইন্টিগ্রেটেড আয়ুশ হাসপাতাল (Integrated Ayush Hospital)। একটি, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় এবং অপরটি আলিপুরদুয়ারে। তবে, দু’টিতেই এখনও পর্যন্ত, আয়ুশ চিকিৎসা পরিষেবা শুরু করা হয়নি! কোভিডের ভয়াবহ অভিঘাতে, এই দুটি হাসপাতালের পরিকাঠামোকে করোনা চিকিৎসা পরিষেবায় কাজে লাগানো হয়েছিল, রাজ্য ও জেলা প্রশাসনের তৎপরতায়। বর্তমানে, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা প্রশাসন ‘আয়ুশ’ চিকিৎসা পরিষেবা চালু করার বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এই বিষয়ে রাজ্য থেকে প্রয়োজনীয় নির্দেশ আসার পরই তা শুরু করা হবে বলে জানা গেছে। জেলার উপ মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ সৌম্যশঙ্কর সারেঙ্গী এই খবরের সত্যতা স্বীকার করে জানিয়েছেন, “আয়ুশ হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা পরিষেবা বন্ধ করা হচ্ছে, শুধুমাত্র ল্যাবটি চালু থাকবে। জেলা প্রশাসন ও জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের পক্ষ থেকে উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে, দ্রুত এখানে আয়ুশ চিকিৎসা পরিষেবা শুরু করার বিষয়ে।” জেলার করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি জানিয়েছেন, “পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে। এই মুহূর্তে ৩০-৪০ জন মাত্র করোনা হাসপাতালে ভর্তি থাকছেন। সংখ্যাটা প্রতিদিন কমছে। শালবনী এবং মেদিনীপুর মেডিক্যালের HDU-SARI ইউনিট ছাড়াও, মেদিনীপুর মেডিক্যালে আরো দুটি ওয়ার্ডকে প্রস্তুত রাখা হচ্ছে। তবে, ঘাটাল, খড়্গপুরে এখনও পরিষেবা দেওয়া হচ্ছে। পরিস্থিতি অনুযায়ী আগামীদিনে তা বন্ধও হতে পারে!” এদিকে, আলিপুরদুয়ারের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ গিরিশ চন্দ্র বেরা জানিয়েছেন, “আলিপুরদুয়ারের একমাত্র করোনা হাসপাতাল এই আয়ুশ’টিই। তাই, এখনও তা বন্ধ করা হয়নি। যদিও, এই মুহূর্তে হাসপাতালে মাত্র ৬ জন করোনা সংক্রমিত চিকিৎসাধীন আছেন। তাই, আগামীদিনে রাজ্য থেকে প্রয়োজনীয় নির্দেশ এলে, আমরা এখান থেকে কোভিড চিকিৎসা পরিকাঠামো অন্যত্র সরিয়ে নিতে প্রস্তুত আছি।”

thebengalpost.in
আলিপুরদুয়ার আয়ুশ হাসপাতাল :

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে