জেলার ৬ টি করোনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মাত্র ৫১ জন, দুই মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রাম পরিদর্শনে রাজ্যের বিশেষ পর্যবেক্ষক

.

মণিরাজ ঘোষ, পশ্চিম মেদিনীপুর, ১৭ নভেম্বর: সারা রাজ্যেই এই মুহূর্তে করোনা সংক্রমণের হার নিম্নমুখী এবং সুস্থতার হার ঊর্ধ্বমুখী। গত চব্বিশ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন মাত্র ৩০১২ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫৩ জনের। সুস্থতার হার বেড়ে প্রায় ৯২ শতাংশ (৯১. ৮১ শতাংশ) হয়েছে। এই মুহূর্তে রাজ্যে চিকিৎসাধীন বা সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমে হয়েছে, ২৭৮৯৭ জন। অপরদিকে, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলাতে নজিরবিহীন ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে সুস্থতার হার। এই মুহূর্তে জেলায় সুস্থতার হার প্রায় ৯৫ শতাংশ। গত চব্বিশ ঘণ্টায় জেলায় করোনা সংক্রমিত হয়েছেন মাত্র ৪৫ জন। এর ফলে, মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হল, ১৫৩২৬। কিন্তু, প্রায় ৯৫ শতাংশ হারে ইতিমধ্যে (১৬ নভেম্বর পর্যন্ত) সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৪৫২১ জন। এখনো পর্যন্ত জেলায় মৃত্যু হয়েছে ২২১ জনের। মৃত্যুর হার মাত্র ১.৪০ শতাংশ। জেলায় এই মুহূর্তে সক্রিয় বা চিকিৎসাধীন আক্রান্তের সংখ্যা মাত্র ৫৮৪ জন। আরো উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো, এই ৫৮৪ জনের মধ্যে জেলার ৬ টি করোনা হাসপাতাল ও সেফ হোম মিলিয়ে চিকিৎসাধীন আছেন মাত্র ৫১ জন। বাকি, ৫৩৩ জন আছেন হোম আইশোলেশনে বা গৃহ নিভৃতবাসে। উপসর্গহীন বা স্বল্প উপসর্গযুক্ত ৫৩৩ জনের সাথেও স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রাখা হয়েছে বলে জানা যায়, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা স্বাস্থ্য ভবনের পক্ষ থেকে।

thebengalpost.in
রাজ্যের করোনা বুলেটিন :

.
.
thebengalpost.in
বিজ্ঞাপন :

জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে প্রাপ্ত, গতকাল অর্থাৎ ১৬ নভেম্বরের রিপোর্ট অনুযায়ী, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার লেভেল ফোর করোনা হাসপাতাল শালবনী, আয়ুশ করোনা হাসপাতাল, আয়ুশ সেফ হোম বা স্যাটেলাইট, ডেবরা সেফ হোম, খড়্গপুর সেফ হোম এবং ঘাটাল করোনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন যথাক্রমে- ৩০, ৮, ০ (একজনও নেই), ৩, ৩ এবং ৭ জন (মোট ৫১ জন)। এছাড়াও, নবনির্মিত মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজের ২৬ শয্যার এইচডিইউ তে ভর্তি আছেন মাত্র ৬ জন। সবমিলিয়ে, এই মুহূর্তে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার করোনা পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে। তা সত্ত্বেও, লোকাল ট্রেন চালু হওয়ার জন্য আগামীদিনে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা করে বা তার আগাম প্রস্তুতি নিয়ে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর প্রতিটি জেলাকে সব রকম ভাবে তৈরি থাকার নির্দেশ দিয়েছে। সেই সূত্র ধরেই, আজ (১৭ নভেম্বর) রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের শীর্ষস্থানীয় আধিকারিক তথা কোভিড নাইনটিন ডিপার্টমেন্টের ওএসডি (OSD- Officer on Special Duty) ডাঃ গোপাল কৃষ্ণ ঢালি দুই মেদিনীপুর এবং ঝাড়গ্রাম সফরে আসছেন। রাজ্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দপ্তরের নির্দেশ অনুযায়ী তিনি প্রথমে, পূর্ব মেদিনীপুরের পাঁশকুড়ায় অবস্থিত বড়মা করোনা হাসপাতাল পরিদর্শন করবেন। দুপুর ১ টা নাগাদ তাঁর পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় পৌঁছনোর কথা। এরপর, জেলার স্বাস্থ্য আধিকারিকদের নিয়ে প্রথমে শালবনী করোনা হাসপাতাল পরিদর্শন এবং চিকিৎসকদের সাথে বৈঠক করার কথা তাঁর। এরপর, মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজের এইচডিইউ (HDU) বিভাগ পরিদর্শন এবং সেখানেও একটি বৈঠক করার কথা তাঁর। আগামীকাল সকালে ডাঃ ঢালি ঝাড়গ্রাম জেলার কোভিড হাসপাতালে পরিদর্শন করে এবং পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে কলকাতায় ফিরবেন বলে জানা গেছে বিশ্বস্ত সূত্রে। বিভিন্ন দেশে কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ বা Second Wave এসেছে। আমাদের দেশে দিল্লি’তেও করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ রাজ্যে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলেও, সারা রাজ্য জুড়ে লোকাল ট্রেন চালু হওয়ার কারণে যেকোনো মুহূর্তে সংক্রমণ বৃদ্ধি পেতে পারে, এরকমই একটা ভাবনা নিয়ে, জেলাগুলিকে তার আগাম প্রস্তুতি নেওয়ার পরামর্শ প্রদান করতেই এবং সার্বিক করোনা পরিকাঠামো খতিয়ে দেখতেই, জেলার স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ তথা পর্যবেক্ষকের এই সফর বলে জানা গেছে।

thebengalpost.in
মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজে ডাঃ গোপাল কৃষ্ণ ঢালি (২২ আগস্ট, ফাইল ছবি) :

.

করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলেও আগামী কয়েক মাস রাজ্যের তরফে কোনো রকম ঝুঁকি নেওয়া হবেনা বলেই জানানো হয়েছে জেলাগুলিকে। জেলার উপ মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক (১) ডাঃ সৌম্যশঙ্কর সারেঙ্গী জানিয়েছেন, “রাজ্যের ওএসডি ডাঃ গোপাল কৃষ্ণ ঢালি আজ শালবনী করোনা হাসপাতাল পরিদর্শন ও বৈঠক করবেন। এরপর, তিনি মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজে পৌঁছবেন। পরিস্থিতি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে থাকলেও, চিকিৎসা ব্যবস্থা ও চিকিৎসা পরিকাঠামো খতিয়ে দেখার সাথে সাথে, প্রয়োজনীয় পরামর্শ দান করবেন বলেই আমরা জানতে পেরেছি।” পশ্চিম মেদিনীপুরের ডিস্ট্রিক্ট ক্লিনিক্যাল কো-অর্ডিনেটর ডাঃ কৃপাসিন্ধু গাঁতাইত জানিয়েছেন, “একটা সময় দুই চব্বিশ পরগণা, কলকাতা, হাওড়া ও হুগলি তে সংক্রমণের আধিক্য দেখা গেছে। কিন্তু, লোকাল ট্রেন সবেমাত্র শুরু হয়েছে, যেকোনো মুহূর্তে জেলায় সংক্রমণ বৃদ্ধি পেতে পারে, এমনই দূরদৃষ্টি নিয়ে রাজ্যের তরফে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে রাখা হচ্ছে। হয়তো, সংক্রমণ বৃদ্ধি নাও পেতে পারে, তবে পূর্ব প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে অসুবিধা নেই। সেই সূত্র ধরেই, রাজ্যের কোভিড ওএসডি’র এই পরিদর্শন।”

thebengalpost.in
ডাঃ গোপাল কৃষ্ণ ঢালি (২২ আগস্ট, ফাইল ছবি) :

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে