সংক্রমিত পরিবারের পাশে শালবনীর ছত্রছায়া! সচেতনতা শিবির থেকে মাস্ক বিতরণ, জীবাণুমুক্ত করণ কিংবা জরুরি প্রয়োজনে রক্তদান, অসামান্য ভূমিকায় সদস্যরা

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ২০ মে: অতিমারীর প্রথম পর্বেও অসহায় পরিবারগুলির পাশে দাঁড়িয়ে মানবতার বার্তা দিয়েছিল ‘টিম ছত্রছায়া’। এবার, দ্বিতীয় পর্বেও স্ব-মহিমায় তারা। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার শালবনী কেন্দ্রিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘ছত্রছায়া’, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আসার পরও সংক্রমিত পরিবারগুলির দিকে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। শালবনী করোনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগী’দের খবরাখবর দুঃশ্চিন্তাগ্রস্ত পরিবারগুলির কাছে পৌঁছে দিতে, হেল্পলাইন নম্বর চালু করে নিজেদের মানবিক কর্মকাণ্ডের সূচনা করেছে ছত্রছায়া। এরপরই, জঙ্গলমহল শালবনী ব্লকের প্রত্যন্ত এলাকাগুলিতে সচেতনতা মূলক কর্মসূচি, মাস্ক বিতরণ প্রভৃতির মধ্য দিয়ে এগিয়ে গেছে তারা। আর, এবার করোনা আক্রান্ত পরিবারগুলির বাড়ি বাড়ি গিয়ে স্যানিটাইজেশন বা জীবাণুমুক্ত করার কাজেও এগিয়ে এলেন ‘ছত্রছায়া’র সদস্যরা।

thebengalpost.in
সংক্রমিত পরিবারের পাশে শালবনীর ছত্রছায়া :

মোবাইলে খবর পেতে জয়েন করুন
Whatsapp Group এ

বুধবার গড়বেতা ব্লকের সাতবিন্দা এলাকায় এক করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির মৃত্যু হয় নিজের বাড়িতেই! ষাটোর্ধ্ব ওই প্রৌঢ়ের পরিবার দুঃশ্চিন্তায় ছিলেন বাড়ি জীবাণুমুক্ত করা নিয়ে। খবর পেয়ে সেখানে পৌঁছে যায় টিম ছত্রছায়া। ওই বাড়ি ছাড়াও সংলগ্ন কয়েকটি বাড়িও জীবাণুমুক্ত করেন তাঁরা। এছাড়াও, বুধবার নিজেদের পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী, বিভিন্ন এলাকায় করোনা সচেতনতা শিবির ও মাস্ক বিতরণের কাজ চালিয়ে যান ছত্রছায়া’র সহৃদয় সদস্যরা। “ছত্রছায়া” গ্রুপের প্রধান কাণ্ডারী নুতন ঘোষ জানান, “আমাদের এক শুভাকাঙ্ক্ষী জয়ন্ত মণ্ডল গড়বেতা থেকে ফোন করে ওই ঘটনার কথা জানায়; সঙ্গে সঙ্গে আমরা নিজেদের কর্মসূচি কিছুক্ষণের জন্য স্থগিত রেখে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে সাতবিন্দা গ্রামে পৌঁছে যাই। বাড়ি জীবাণুমুক্ত করার পাশাপাশি, পরিবারের সদস্যদের সচেতনতা মূলক বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করি এবং তুলে দিই মাস্ক।” এই কর্মসূচিতে টিম ছত্রছায়ার সঙঙ্গে ছিলেন অনিন্দ্য বসু চৌধুরী, রাজীব পাল, জয়ন্ত মন্ডল ও তাপস মন্ডল।

thebengalpost.in
সংক্রমিত পরিবারের পাশে শালবনীর ছত্রছায়া! সচেতনতা শিবির থেকে মাস্ক বিতরণ, জীবাণুমুক্ত করণ কিংবা জরুরি প্রয়োজনে রক্তদান, অসামান্য ভূমিকায় সদস্যরা :

অপরদিকে, মহামারীর মধ্যেও সমস্ত বাধা-বিপত্তিকে উপেক্ষা করে ষাটোর্ধ্ব রোগিনীর জরুরি প্রয়োজনে রক্ত দিতে এগিয়ে এলেন ছত্রছায়া’র অন্যতম সক্রিয় সদস্য দেবাশীষ মন্ডল। জানা গেছে, কামারপুকুরের অপর্ণা মুখার্জি (৬৫) দীর্ঘদিন ধরেই মেদিনীপুর শহরের এক বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তিনি অ্যাকিউট অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতার রোগী। জরুরী ভিত্তিতে তাঁর ‘এ পজিটিভ’ রক্তের প্রয়োজন হয়ে পড়েছিল। বিভিন্ন সূত্রে খবর পেয়ে, বুধবার সন্ধ্যায় মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজের ব্লাড ব্যাংকে গিয়ে রক্তদান করেন দেবাশীষ। পরিবারের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানানো হয় টিম ছত্রছায়া ও তাদের মানবদরদী সদস্যকে।

thebengalpost.in
দেবাশীষ মণ্ডল :

আরও পড়ুন -   'করোনা জয়' করলেন মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ, শালবনীতে করোনা মুক্ত সদ্যজাত কন্যা ও মা