মেদিনীপুরের জঙ্গলে “রয়্যাল বেঙ্গল” হত্যার তিন বছর! নীরবতা পালন বনকর্মীদের, “হাতে-পায়ে ধরে” ফেরানো হল শিকারীদের

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ১৩ এপ্রিল: ২০১৮ এর ১৩ ই এপ্রিল। সচেতন-শিক্ষিত-ঐতিহ্য মন্ডিত মেদিনীপুরের ইতিহাসে এক কালো দিন! ভারতের জাতীয় পশু “দ্য রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার” (Royal Bengal Tiger) এর অপমৃত্যু (হত্যা)’র দায় আজও বহন করে চলেছে মেদিনীপুর। ২০১৮ এর জানুয়ারি’তে লালগড়ের জঙ্গলে গ্রামবাসীদের বাঘ দেখতে পাওয়ার খবর দিয়ে যে ঘটনার সূত্রপাত, ১৩ ই এপ্রিল ২০১৮, মেদিনীপুর বনবিভাগের অন্তর্গত চাঁদড়া রেঞ্জের (মেদিনীপুর সদর ব্লক) বাঘঘরার জঙ্গলে চোয়ালে বল্লম বেঁধা “রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার” এর নিথর দেহ উদ্ধারের মধ্যে ঘটেছিল তার যবনিকা পতন! সেই হাড় হিম করা কুখ্যাত ইতিহাসের আজ তৃতীয় বৎসর। মেদিনীপুর বনবিভাগের পক্ষ থেকে সেই নিন্দনীয় ইতিহাস এবং মৃত দক্ষিণরায় (রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার)’কে স্মরণ করে আজ বাঘঘরার জঙ্গলে গিয়ে ‘নীরবতা পালন’ করা হল! শুধু তাই নয়, এদিনও জঙ্গলে আসা শিকারীদের একপ্রকার ‘হাতে-পায়ে ধরে’ ফেরত পাঠানো হল বনদপ্তরের পক্ষ থেকে।

thebengalpost.in
বাঘ হত্যা (১৩ এপ্রিল, ২০১৮) :

মোবাইলে খবর পেতে জয়েন করুন
Whatsapp Group এ
thebengalpost.in
শিকারীর দল :

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৮ এর জানুয়ারি (৩০) তে লালগড়ের স্থানীয় বাসিন্দারা প্রথম জানিয়েছিলেন বাঘ দেখার কথা! ফেব্রুয়ারি’তে সেই ‘বাঘ দেখার’ কথা জানালেন মধুপুর জঙ্গল সংলগ্ন বাসিন্দারা। ২ রা মার্চ সিসিটিভি ক্যামেরায় ধরা পড়ল দ্য রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের ছবি! তৎকালীন ডি এফ ও রবীন্দ্রনাথ সাহা সাংবাদিক সম্মেলন করে ‘সত্যতা’ স্বীকার করলেন। এরপর কত আয়োজন! সুন্দরবন থেকে আসে বিশেষ খাঁচা। উড়তে থাকে ড্রোন ক্যামেরা। দক্ষিণরায়ের উপর নজরদারি চালাতে গিয়ে জঙ্গলমহলের দুই তরতাজা যুবক, বনকর্মী দামোদর মুর্ম্মু (৪৭) এবং অত্যাধুনিক ঐরাবত গাড়ির ড্রাইভার অমল চক্রবর্তী (৪০)’র জীবনহানিও ঘটে! তবে, শেষমেশ জীবন্ত অবস্থায় ধরা যায়নি ‘জাতীয় পশু’ দ্য রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার’টিকে। ১৩ ই এপ্রিল (২০১৮) একদল শিকারীদের হাতে শহীদ হতে হয়, পথভুলে মেদিনীপুরে চলে আসা ‘দ্য রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার’টিকে। বাঘের হামলায় জখম হয়ে মেদিনীপুর সদর হাসপাতালে (মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে) ভর্তি হয় বাবলু হাঁসদা (৩৫) এবং বাদল হাঁসদা (১৯)। স্টেট এবং সেন্ট্রাল ফরেনসিক সায়েন্স ল্যাবরেটরি-র রিপোর্ট বলে- বিষক্রিয়া নয়, বল্লমের খোঁচায় বা ‘আঘাতে’ (অপঘাতে) মৃত্যু হয়েছে বাঘটির। টাঙির মতো ধারালো অস্ত্রের আঘাতও পাওয়া যায় ও প্রমাণিত হয়। এভাবেই, আনুমানিক ১০-১২ বছরের পূর্ণ বয়স্ক (ওজন- ২২০ কেজি, লম্বায় ৬ ফুট ৪ ইঞ্চি) রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার’টির অপমৃত্যু ঘটে জঙ্গলমহল পশ্চিম মেদিনীপুরের মাটিতে! জঙ্গলমহলের মাটিতে ‘জাতীয় পশু’র অপমৃত্যু’র সেই ‘লজ্জার ইতিহাস’ আজও কাঁদায় জঙ্গলমহলবাসী’কে। শোকসন্তপ্ত হৃদয়ে, মেদিনীপুর বনবিভাগের এ ডি এফ ও বুদ্ধদেব মন্ডল, ভাদুতলা রেঞ্জের রেঞ্জ অফিসার পাপন মোহান্ত এবং চাঁদড়া রেঞ্জের রেঞ্জ অফিসার সুজিত পান্ডা সহ একাধিক বনকর্মী আজ (১৩ ই এপ্রিল) ঘটনাস্থলে গিয়ে “১ মিনিট নীরবতা পালন” করলেন! তারপরই তাঁরা জঙ্গলে ঘুরে ঘুরে অন্তত ৭০ জন শিকারীকে বুঝিয়ে-সুঝিয়ে, অনুরোধ-উপরোধ করে ‘শিকার’ থেকে নিরস্ত করেন এবং বাড়ি ফেরত পাঠান। (তথ্য ঋণ ও বাঘের ছবি : রাকেশ সিংহ দেব)

thebengalpost.in
ঘটনাস্থলে আজ বনকর্মী ও আধিকারিকরা :

thebengalpost.in
নীরবতা পালন :

আরও পড়ুন -   ফের সাপ্তাহিক লকডাউনের দিন বদল , পাত্তা পেল না দিলীপের 'রাম' আর্জি