“আমাকে আমার লক্ষ্য, আমার কর্ম পদ্ধতি, আমার দায়বদ্ধতা থেকে কেউ সরিয়ে দিতে পারে নি, ভবিষ্যতেও পারবে না”, নেতাই গ্রামে ‘সেবক’ শুভেন্দু বললেন

thebengalpost.in
নেতাই গ্রামের সেবক শুভেন্দু অধিকারী :
.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, লালগড়, ১৮ অক্টোবর: "চন্দ্র-সূর্য পৃথিবীতে যতদিন উঠবে, যতদিন শুভেন্দু অধিকারী হাঁটতে-চলতে পারবে, নেতাইয়ের গ্রামবাসীর সাথে ছিলাম, আছি, ভবিষতেও থাকবো", লালাগড়ের নেতাই গ্রামে রবিবার এমন মন্তব্যই করলেন পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। ১৮ অক্টোবর লালগড়ের নেতাইয়ে শুভেন্দু হাজির হয়েছিলেন, 'নেতাই গ্রামের সেবক' হিসেবে। তৃণমূলের নেতা বা মন্ত্রী হিসেবে নয়। কোনো সরকারি প্রকল্প বা মুখ্যমন্ত্রীর নাম এবারও মুখে আনেননি। বরং দিয়েছেন করোনা সচেতনতার বার্তা, "আপনারা দূরত্ব বজায় রেখে মাস্ক-স্যানিটাইজার ব্যবহার করে মায়ের পুজো দেবেন। প্রার্থনা করবেন যাতে পৃথিবী করোনা মুক্ত হয়।" ভুলে যাননি, তাঁর করোনা আক্রান্ত হওয়ার সময় তাঁর সকল অনুগামী ও শুভচিন্তকদের প্রার্থনার কথা। বললেন, "আমি করোনা আক্রান্ত হয়ে যখন হাসপাতালে ছিলাম, তখন আপনারা আমার জন্য হোম যজ্ঞ করেছেন, এজন্য আপনাদের প্রণাম!" তিনি এও বলেন, এখন তিনি করোনা মুক্ত এবং অনেকটাই সুস্থ, তবে একশো শতাংশ সুস্থ নন। তাই, সকলকেই সচেতন থাকার পরামর্শ দেন।

thebengalpost.in
নেতাই যাওয়ার পথে শালবনীর ভীমপুরে শুভেন্দু :

.
thebengalpost.in
নেতাই গ্রামে শুভেন্দু অধিকারী :

রবিবার (১৮ অক্টোবর), লালগড়ের নেতাই গ্রামে, নেতাই শহীদ স্মৃতিরক্ষা কমিটির ব্যবস্থাপনায়, পুজোর উপহার হিসাবে পরিষেবা প্রদান অনুষ্ঠানে রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী একেবারে খোলামেলা মেজাজে ছিলেন। নেতাইবাসীকে দিলেন সদাসর্বদা পাশে থাকার বার্তা। এদিন তাঁর উদ্যোগে, গ্রামের ৫২ জন মহিলাকে সেলাই মেশিন এবং ১৭ জনের হাতে নতুন বাড়ির চাবি তুলে দেন। লালগড়ের নেতাই গ্রামে দাঁড়িয়ে রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী বলেন, "আপনাদের চাঁদ ধরিয়ে দিতে পারবো না, তবে নূন্যতম সহযোগিতা করবো। কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছি। তাই, সেলাই মেশিন উপহার দেওয়া হচ্ছে, স্বনির্ভর হয়ে উঠুন। বাড়ি প্রদান করা হচ্ছে।" তিনি এও বলেন, "নেতাইয়ের শহীদ পরিবারের পাশে ২০১১ থেকেই আছি, তাই এবারেও পুজোর উপহার দিতে এসেছি। প্রত্যেক বছর দুর্গা পুজোর সময় আহত এবং নিহত পরিবার গুলির পাশে থাকি। জানুয়ারি মাসে যখন আমি এখানে এসেছিলাম, গ্রামবাসীদের মধ্যে কিছু আহত পরিবার ও নিহত পরিবারের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের ক্ষোভ দেখেছিলাম। তারপর আমি তাঁদেরকে নিয়ে ওই দিনই এখানে কমিনিউটি হলে আলোচনা করেছিলাম। স্ব-নির্ভরতা খুব প্রয়োজন। আপনারা স্ব-নির্ভর হয়ে উঠুন।" উল্লেখ্য যে, এক্ষেত্রেও তিনি কোনো সরকারি প্রকল্পের কথা তুলে ধরেননি! তবে, 'তৃণমূল' এর নেতা হিসেবে না হলেও, 'জননেতা' হিসেবে নিজেকে তুলে ধরতে কুন্ঠাবোধ করেননি শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেন, "আমাকে আমার লক্ষ্য, আমার কর্ম পদ্ধতি, আমার দায়বদ্ধতা থেকে কেউ সরিয়ে দিতে পারেনি, ভবিষ্যতেও পারবে না!" ইঙ্গিত টা কোন দিকে ছিল বোঝা মুশকিল! তবে, তৃণমূলের অনেক ছোটোখাটো নেতাই, যারা শুভেন্দু অনুগামী হিসেবেই পরিচিত, তাঁরা শুভেন্দু অধিকারী'কে সমর্থন জানিয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়ে নিজেদের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে মন্তব্য করেছেন, তৃণমূল কি নেতাই ভুলে গেল? নেতাইয়ের জন্যই সরকার, একে মনে রাখা দরকার! অপরদিকে, শুভেন্দু অধিকারী, যাকে নিয়ে তৃণমূল-বিজেপি-সিপিএম-কংগ্রেস থেকে সংবাদমাধ্যম কিংবা সাধারণ মানুষের মধ্যে নানা 'আলোচনা' মুখে মুখে ঘুরে বেড়াচ্ছে, তিনি কিন্তু, নেতাই-নন্দীগ্রামকে হৃদয়ে রেখে 'সমুখ পানে' এগিয়ে যাওয়ার বার্তা দিয়ে গেলেন!

thebengalpost.in
নেতাই গ্রামের সেবক শুভেন্দু অধিকারী :

.
.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে