সার্থক ‘শিক্ষারত্ন’ পশ্চিম মেদিনীপুরের শিক্ষিকা! পুরস্কারের সম্পূর্ণ অর্থ বিদ্যালয় তহবিলেই তুলে দিলেন তনুশ্রী দিদিমণি

.

মণিরাজ ঘোষ, খড়্গপুর, ২৬ সেপ্টেম্বর :পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার, খড়্গপুর-১ নং ব্লকের হিজলি থেকে প্রত্যন্ত একটি এলাকায় কুচলাচাটি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষিকা তনুশ্রী দাস ২০১৬ থেকে দায়িত্ব নেওয়ার পর (ওই স্কুলেই শিক্ষকতা করছেন ১৯৯৯ সাল থেকে) বদলে দিয়েছেন স্কুলের চেহারা। তাঁর স্নেহ স্পর্শে বিদ্যালয়ের প্রতিটি অংশ সমৃদ্ধ হয়েছে, সুন্দর হয়েছে, সুসজ্জিত হয়েছে। বেড়েছে ছাত্র-ছাত্রী সংখ্যা। দূর-দূরান্ত থেকে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের এই বিদ্যালয়ে পড়তে আসে ছাত্র-ছাত্রীরা। দিদিমণি এই কৃতিত্ব সকলের সঙ্গে ভাগ করে নিয়ে বলেন, “আমার সহকর্মীদের সাহায্য ও সহযোগিতা অনস্বীকার্য! সকলের প্রচেষ্টায় স্কুলটিকে সাধ্যমতো সাজিয়ে তোলার চেষ্টা করেছি। এছাড়াও, আমরা ক্লাস বা শ্রেণী অনুযায়ী কক্ষ তৈরি না করে, বিষয় অনুযায়ী শ্রেণীকক্ষ তৈরি করেছি। সকল ছাত্র-ছাত্রী যাতে আগ্রহভরে সমস্ত কিছু শিখতে পারে।” ভারপ্রাপ্ত শিক্ষিকা হিসেবে প্রত্যন্ত অঞ্চলের এই স্কুলকে সমৃদ্ধ করার পুরস্কার তিনি পেয়েছেন! ‘শিক্ষক দিবস’, অর্থাৎ ৫ সেপ্টেম্বর রাজ্য সরকার প্রদত্ত “শিক্ষারত্ন ২০২০” সম্মানে শিক্ষিকা তনুশ্রী দাস বিভূষিতা হয়েছেন। বিদ্যালয়ের দিদিমণি’র “শিক্ষারত্ন” সম্মান অর্জন”কে স্মরণীয় করে রাখতে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে একটি ছোট্ট অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল, গতকাল (শুক্রবার)। উপস্থিত ছিলেন, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শক (প্রাথমিক শিক্ষা) তথা জেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় সংসদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি (Chairman In Charge, DPSC) তরুণ কুমার সরকার, সহকারী বিদ্যালয় পরিদর্শক শুভ্রকান্তি নন্দ, প্রাক্তন আধিকারিক অধ্যাপক ড. অরুণাভ প্রহরাজ সহ বিদ্যালয়ের VEC কমিটির সদস্যবৃন্দ। বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে শিক্ষিকা তনুশ্রী দাস’কে সম্মান জানানো হয়।

THEBENGALPOST.IN
শিক্ষিকা তনুশ্রী দাস শিক্ষারত্নের সম্পূর্ণ অর্থ তুলে দিলেন বিদ্যালয় তহবিলে :

.

সম্মান জ্ঞাপক এই অনুষ্ঠান থেকেও, বিদ্যাসাগরের মেদিনীপুরের শিক্ষিকা তনুশ্রী দাস আবারো স্বাতন্ত্র্যের স্বাক্ষর রাখলেন! ‘শিক্ষারত্ন’ পুরস্কার থেকে প্রাপ্ত সম্পূর্ণ অর্থ (২৫,০০০ টাকা)ই তিনি বিদ্যালয় তহবিলে অনুদান হিসেবে তুলে দিলেন। বিদ্যালয় পরিদর্শক (প্রাথমিক) তরুণ সরকার বললেন, “উনি সার্থক অর্থেই একজন শিক্ষারত্ন! এই মানসিকতা শুধু প্রশংসনীয় নয়, দৃষ্টান্তমূলকও বটে। ওনাকে এবং ওনাদের বিদ্যালয়ের প্রতি অনেক অনেক শুভেচ্ছা থাকলো।” আর, তনুশ্রী দিদিমণি বললেন, “এই ‘শিক্ষারত্ন’ সম্মান আমার একার নয়, আমার সকল সহকর্মী, শিক্ষার্থী, অভিভাবক সহ সংশ্লিষ্ট সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টার ফসল! তাই, পুরস্কারের অর্থ সার্বিকভাবে স্কুলেরই প্রাপ্য। নিজেরাই স্কুলের জন্য অনেক কাজ করে থাকি, সেই সমস্ত কাজেই এই অর্থ ব্যবহার করতে পারব।”

THEBENGALPOST.IN
স্কুলের ছোট্ট অনুষ্ঠানে বিদ্যাসাগর স্মরণ জন্মজয়ন্তী’র ঠিক প্রাক্কালে (২৫.০৯.২০২০) :

.
.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে