ভর সন্ধ্যায় রাজ্যে শুট আউট! গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু বিজেপি’র বড় নেতার, অভিযোগের তীর তৃণমূলের দিকে, ক্ষুব্ধ রাজ্যপাল

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, উত্তর ২৪ পরগণা, ৫ অক্টোবর: ভর সন্ধ্যায় শুট আউট রাজ্যে! আইনশৃঙ্খলা নিয়ে উঠে গেল বড়োসড়ো প্রশ্ন চিহ্ন। উত্তর চব্বিশ পরগণার টিটাগড় থানার অদূরে, বিজেপি’র পার্টি অফিসের সামনে একেবারে ভর সন্ধ্যায় বিজেপি নেতা’কে লক্ষ্য করে পরপর চার-পাঁচ রাউন্ড গুলি করে, পালিয়ে গেল দুষ্কৃতীরা। ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিংহের ঘনিষ্ঠ ও ‘ডান হাত’ বলে এলাকায় পরিচিত, প্রাক্তন কাউন্সিলর মণীশ শুক্লা’কে লক্ষ্য করে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা! ঘটনাস্থলেই লুটিয়ে পড়েন মণীশ। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে বাইপাসের ধারে এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই সব চেষ্টা ব্যর্থ করে, রাত্রি সাড়ে দশটা নাগাদ মৃত্যু হয় তাঁর!

thebengalpost.in
প্রাক্তন কাউন্সিলর মণীশ শুক্লা :

.
thebengalpost.in
বাইপাসের ধারে বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় মণীশ শুক্লার :

এই ঘটনার পেছনে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা জড়িয়ে আছেন বলে অভিযোগ ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের। ঘটনাকে ঘিরে তীব্র উত্তেজনা টিটাগড়ে! পথ অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেছেন বিজেপি নেতাকর্মীরা। ঘটনাস্থলে ডিসিপি অজয় ঠাকুর পৌঁছলে তাঁকে ঘিরে ধরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন বিজেপি কর্মীরা। জানা গিয়েছে, রবিবার হাওড়ার এক দলীয় সভা ও মিছিলে যোগ দিতে গিয়েছিলেন, পেশায় আইনজীবী, প্রাক্তন কাউন্সিলর তথা বিজেপি’র ব্যারাকপুর সাংগঠনিক জেলার সদস্য মণীশ শুক্লা। সেখান থেকে, এদিন সন্ধ্যায় ফিরে টিটাগড় থানার পাশে বিটি রোডের ওপর দলীয় কার্যালয়ে ঢুকছিলেন তিনি। সেই সময়ই, নিজের গাড়ি থেকে নামার সাথে সাথে, একেবারে সামনে থেকে তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়, বাইকে করে আসা দুষ্কৃতীরা। চার চারটি গুলি মণীশ শুক্লা’র শরীর ভেদ করে বেরিয়ে যায় বলে জানিয়েছেন তাঁর সঙ্গে থাকা দলীয় কর্মীরা। দু’জন কর্মীর গায়েও গুলি লাগে বলে জানা গেছে। তবে তাঁদের আঘাত গুরুতর নয়। দুষ্কৃতীদের আসল লক্ষ্য ছিল, অর্জুন সিংয়ের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ মণীশই। লক্ষ্য পূরণ করে বাইক নিয়ে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। ঘটনাস্থলেই লুটিয়ে পড়েন মণীশ। প্রথমে তাঁকে স্থানীয় তালপুকুর বিএমআরসি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু, ক্রমশই শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে বাইপাসের ধারে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই তিনি মারা যান!

thebengalpost.in
কৈলাস বিজয়বর্গীয় সিবিআই তদন্তের দাবি করলেন :

.

মণীশ’কে নিজের ভাই বলে সম্বোধন করে বিজেপি নেতা অর্জুন সিং বলেছেন, “মণীশ আমার ছোট ভাই ছিল, সব সময় আমার সঙ্গে আমার ঢাল হয়ে থেকেছে। আজ এই বঙ্গভূমির জন্য ও শহীদ হল, এই বলিদান ব্যারাকপুর এবং বাংলা মনে রাখবে। টিএমসি, ওদের নেতা এবং পুলিশ সবাই নিজেদের এই ভুল আর কুকর্মের ফল অবশ্যই ভোগ করবেন।” এদিকে, এই ঘটনায় বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা তথা পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় সিবিআই তদন্তের দাবি করেছেন। রাজ্যপাল জাগদীপ ধনখড়, মুখ্যমন্ত্রী এবং রাজ্য পুলিশ’কে উদ্ধৃত করে নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে, রাজ্যের আইন শৃংখলার বিষয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এবং আগামীকাল সকাল ১০ টায় ডেকে পাঠিয়েছেন।

thebengalpost.in
ক্ষুব্ধ রাজ্যপালের টুইট :

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে