মেদিনীপুরের দুই ‘কন্যাশ্রী’ শালবনীর বুড়িশোল ও পীরচকের কচিকাঁচাদের পরিয়ে দিল পুজোর নতুন জামা

.

মণিরাজ ঘোষ, শালবনী (পশ্চিম মেদিনীপুর), ১৪ অক্টোবর: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বপ্নের প্রকল্প ‘কন্যাশ্রী’; মেয়েদের মুক্তির পথে এক উজ্জ্বল আলোকবর্তিকা। আর, সেই ‘কন্যাশ্রী’রা যখন নিজেদের মুক্তি আর প্রাপ্তির আনন্দ ছড়িয়ে দেয়, একদল মাটির সন্তানদের মুখে, মাটিতেই তখন স্বর্গ নেমে আসে যেন! ‘বিদ্যাসাগর ফাউন্ডেশনে’র উদ্যোগে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার শালবনী ব্লকের প্রত্যন্ত এলাকায়, দারিদ্র্যপীড়িত বুড়িশোল গ্রামে মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) বিকেলে সেই পবিত্র সন্ধিক্ষণই তৈরি হয়েছিল। যার অন্যতম দুই রূপকার, দুই ‘কন্যাশ্রী’ স্বাতী লায়েক ও সুবর্ণা দত্ত। নিজেদের প্রাপ্ত অর্থ থেকে, জঙ্গলমহল শালবনীর লোধা শবর, ভূমিজ সন্তানদের পুজোর নতুন পোশাক কিনে দিতে তারা সাহায্য করল, স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘বিদ্যাসাগর ফাউন্ডেশ’কে।

thebengalpost.in
বুরড়িশোল গ্রামে পূজোর নতুন পোশাক বিতরণ করল বিদ্যাসাগর ফাউন্ডেশন :

.

স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা বিদ্যাসাগর ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেওয়া হয়, লোধা শবর অধ্যুষিত পীরচক ও গোয়ালডিহি গ্রাম এবং ভূমিজ অধ্যুষিত বুড়িশোল গ্রামের শতাধিক কচিকাঁচাকে পুজোয় নতুন জামা উপহার দেবেন, বিগত কয়েক বছরের মতোই! ফাউন্ডেশনের অন্যতম কান্ডারী প্রবীর কুমার লায়েক এবং তাঁর স্ত্রী রূপসী লায়েক জানান, “আপাতত পীরচক ও বুড়িশোল গ্রামের ৬৮ জন বাচ্চার হাতে নতুন জামা-কাপড় তুলে দিতে পেরেছি। কয়েকদিনের মধ্যে, গোয়ালডিহি গ্রামের ৪০ টি বাচ্চার হাতেও পুজোর পোশাক তুলে দেওয়ার চেষ্টা করব। এই কর্মসূচিতে, অনেক সহৃদয় মানুষের সহায়তা পেয়েছি, তাদের মধ্যে অন্যতম হল, স্বাতী লায়েক (প্রবীর বাবু ও রূপসী দেবীর মেয়ে) ও তার বন্ধু সুবর্ণা দত্ত। ওরা দু’জন তাদের কন্যাশ্রী’র টাকা থেকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্যই, বুড়িশোল ও পীরচক গ্রামের মোট ৬৮ জন ছেলে-মেয়েকে নতুন জামাকাপড় দিতে পারলাম। কয়েকদিন আগে পীরচক গ্রামের কচিকাঁচাদের দিতে পেরেছিলাম, মঙ্গলবার বুড়িশোল গ্রামে দিলাম। ওরা দু’জন ছাড়াও যাঁরা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন এবং বরাবরই আমাদের পাশে থাকেন, তাঁরা হলেন- শিক্ষিকা শিবানী পাল, অরূপ দাস, অতশী দাস, সুমিতা ঘোষ প্রমুখ।”

thebengalpost.in
দুই কন্যাশ্রী বাড়িয়ে দিল মানবিকতার হাত :

.

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এদিন সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এই কর্মসূচি সম্পন্ন করতে সহায়তা করেন, করোনা যোদ্ধা (পেশায় এ এন এম) সুমিতা ঘোষ। এছাড়াও, এদিন উপস্থিত ছিলেন, চুনী কোটাল চ্যারিটেবল ট্রাস্টের সম্পাদক মৃণাল কোটাল, গ্রামের অভিজ্ঞ মানুষ মধুসূদন ভূঁইয়া প্রমুখ।

thebengalpost.in
বুড়িশোল ও পীরচকে বস্ত্র বিতরণ :

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে