জেলা পরিষদের ‘মেন্টর’ পদ থেকে ইস্তফা শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ নেতার, সবংয়ে অনুগামীদের বাড়িতে বোমাবাজির অভিযোগ

বিজ্ঞাপন

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ১ ডিসেম্বর: মেদিনীপুর পৌরসভার পৌর প্রশাসক মণ্ডলী থেকে সরিয়ে দেওয়ার পরে নিজের আত্মসম্মানের কথা মাথায় রেখে, মেদিনীপুর জেলা পরিষদের ‘মেন্টর’ পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিলেন, শুভেন্দু অধিকারী ঘনিষ্ঠ বর্ষীয়ান তৃণমূল কংগ্রেস নেতা প্রণব বসু। সেই সিদ্ধান্ত যাতে দ্রুত কার্যকরী হয়, সেই উদ্দেশ্যেই মঙ্গলবার দুপুরে জেলা পরিষদের বড় বাবুর কাছে নিজের ইস্তফাপত্র খামবন্দী অবস্থায় জমা দিয়েছেন তিনি। এদিন তিনি ভাড়া করা গাড়িতে করে এসেছিলেন জেলা পরিষদ চত্বরে, ‘মেন্টর’ হিসেবে পাওয়া গাড়িতে করে নয়। সভাধিপতি বা জেলা পরিষদের সচিবের সাথে দেখা না করে তিনি সোজা চলে যান বড় বাবুর চেম্বারে। সেখানে জেলা পরিষদের মেন্টর পদ থেকে ইস্তফা পত্র জমা দেন। প্রণব বসুর কথায়, এর আগে ১৮ নভেম্বর মেদিনীপুর পৌরসভার পৌর প্রশাসক বোর্ডের সদস্য পদ থেকে তাঁকে সরিয়ে দেয় প্রশাসন। তাঁকে যে ওই পদ থেকে সরানো হচ্ছে সেই খবরও আগাম জানানো হয়নি! তিনি পৌরসভা সূত্রে জানতে পারেন, তাকে ওই পদে থেকে অব্যাহতি দিয়েছে সরকার। তাঁর বদলে খড়্গপুর গ্রামীনের বিধায়ক দীনেন রায়কে ওই বোর্ডে স্থান দেওয়া হয় এবং চেয়ারপারসন করা হয়। এই ব্যাপারে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। কেন তাঁকে পৌর প্রশাসকের সদস্য পদ থেকে সরানো হলো, তা জানতে চেয়ে হাইকোর্টে রিট পিটিশন করেছেন। প্রণব বসু বলেন, যেহেতু পৌরসভা থেকে না জানিয়ে সরানো হয়েছে, তাই মেন্টর পদ থেকেও যেকোন মুহূর্তে সরানো হতে পারে, এমন আশঙ্কা করেছিলেন তিনি! তাই, অপমানিত হতে না চেয়ে, নিজেই ইস্তফা দেন, শুভেন্দু অনুগামী হিসেবে জেলায় পরিচিত প্রণব বসু। প্রসঙ্গত, মেদিনীপুর শহরে বিজয় সম্মিলনীর অনুষ্ঠানে শুভেন্দু’র সঙ্গে একই মঞ্চে হাজির ছিলেন তিনি। তারপর থেকেই শুরু হয় রাজনৈতিক জল্পনা-কল্পনা। প্রণবের কথায়, “শুভেন্দু অধিকারী এখনো দলে রয়েছেন। তিনি তাঁর মন্ত্রীত্ব থেকে ইস্তফা দিয়েছেন ঠিকই, কিন্তু দলের একজন কর্মী হিসেবে রয়েছেন। যেহেতু তিনি দলের কর্মী তাই তাঁকে এখনও নেতা হিসেবে মনে করি। তিনি যতক্ষণ পর্যন্ত দল ছাড়ছেন না বা তাঁকে দল থেকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে না, ততক্ষন পর্যন্ত তাঁকে নেতা হিসেবে মেনে চলবো। যেদিন তিনি অন্য কোথাও যাবেন, সেদিন নতুন কিছু ভাববো।”

thebengalpost.in
সবংয়ে অনুগামীদের বাড়িতে বোমাবাজি করার অভিযোগ :

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে, সোমবার রাতে শুভেন্দু অধিকারী সবং থেকে ফিরে যাওয়ার ঠিক পরেই তাঁর “অনুগামী”দের বাড়িতে হামলা চালায় কয়েকজন দুষ্কৃতী। বোমাও ছোড়া হয় বলে অভিযোগ। এর পরেই গতকাল (সোমবার) রাত্রিতে , তৃণমূল নেতা তথা জেলা কর্মাধ্যক্ষ অমূল্য মাইতি’র নির্দেশে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে কয়েকটি তাজা বোমা উদ্ধার করে ঘটনাস্থল থেকে। অমূল্য মাইতির অভিযোগ, “গতকাল রাতে অতনু সিং নামে যে নিজেকে তৃণমূল কর্মী হিসেবে পরিচয় দেয়, সেই হামলা চালিয়েছে।” শুভেন্দু অধিকারীর মিছিলে যোগ দেওয়ায়, তাদের বাড়িতে হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন অমূল্য মাইতি। প্রসঙ্গত গতকাল সবং এর প্রাক্তন ব্লক সভাপতি প্রভাত মাইতির স্ত্রী’র স্মরণসভায় শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। ফিরে যাওয়ার পরেই এই হামলার ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ। অবশ্য এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি। তাঁর দাবি, যার বাড়িতে হামলা হয়েছে তিনি আদৌ তৃণমূল কর্মী কিনা খতিয়ে দেখতে হবে। বিজেপি এই ধরনের নানা অভিযোগ করে থাকে। এই ঘটনার পিছনে বিজেপির হাত থাকতে পারে বলে দাবি করলেন অজিত মাইতি।

thebengalpost.in
সবংয়ে অনুগামীদের বাড়িতে বোমাবাজির অভিযোগ উঠল :

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে