মেদিনীপুরে হবে ড্রাগন ফলের চাষ, আদিবাসী পরিবারগুলিকে স্ব-নির্ভর করার লক্ষ্যে কৃষি ও উদ্যান পালন দপ্তরের উদ্যোগ

Dragon Fruit cultivation at Midnapore Sadar Block

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, মেদিনীপুর, ২৫ সেপ্টেম্বর: মেদিনীপুর সদর ব্লকের মণিদহ গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত, আউশাবাঁধী গ্রামে প্রায় ৪৭ টি আদিবাসী পরিবার বসবাস করে। ‘পূর্ব ভারতের সবুজ বিল্পব আনয়ন’ (BGREI) প্রকল্পের মাধ্যমে, রাজ্য তথা জেলা কৃষি দপ্তর এই গ্রামখানিকে স্ব-নির্ভর করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে। সেই উপলক্ষে, বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর), পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কৃষি বিভাগের উদ্যোগে একটি “শস্য পর্যায় ভিত্তিক কৃষি প্রশিক্ষণ শিবির” এর আয়োজন করা হয়েছিল, মণিদহ গ্ৰাম পঞ্চায়েতের এই আউসাবাঁধী গ্ৰামে। সেখানেই, বর্তমানে লাভজনক বা অর্থকরী ফসল হিসেবে ড্রাগন ফ্রুট বা ড্রাগন ফল চাষের বিষয়ে আলোচনা করেন, কৃষি ও উদ্যান পালন দপ্তরের আধিকারিকরা। উপস্থিত ছিলেন, বিডিও (Block Development Officer) ফারহানাজ খানম, এডিএ (Additional Director of Agriculture) ভিক্টর ব্যানার্জি, মেদিনীপুর সদর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শ্রাবন্তী মন্ডল ও মনিদহ গ্ৰাম পঞ্চায়েতের উপ প্রধান অঞ্জন কুমার বেরা।

THEBENGALPOST.IN
আওশাবাঁধী‌ গ্রামে বিডিও, জনপ্রতিনিধি সহ আধিকারিকদের বৈঠক গ্রামবাসীদের নিয়ে :

.

প্রসঙ্গত, মেদিনীপুর সদর ব্লকের এই গ্রামটি সম্পূর্ণরূপে আদিবাসী অধ্যুষিত। এই গ্রামে, ইতিমধ্যে প্রায় ৬ একর জমিতে বিভিন্ন ধরনের অর্থকরী ফলের (পেঁপে, কাজু প্রভৃতি) গাছ লাগানো হয়েছে। এবার, পূর্ব ভারতের সবুজ বিল্পব আনয়ন (BGREI) প্রকল্পের মাধ্যমে, শুধু ড্রাগন ফ্রুট চাষই নয়, খাকি ক্যাম্বেল হাঁস, খড়্গেশ্বর মুরগি প্রতিপালনের উদ্যোগও গ্ৰহণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। ৪৭ টি আদিবাসী পরিবারের সদস্যদের নিয়ে, এই বিষয়ে বৃহস্পতিবার প্রাথমিক পর্যায়ের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আধিকারিক ও জনপ্রতিনিধিরা। জেলা কৃষি ও উদ্যান পালন বিভাগের সহযোগিতায় এই প্রজেক্ট বা প্রকল্প সম্পাদিত হবে। জেলার কৃষি কর্মাধ্যক্ষ রমাপ্রসাদ গিরি এদিন উপস্থিত না থাকলেও, তিনি ফোনে জানিয়েছেন, “গ্রামটিকে স্বনির্ভর করে তোলার লক্ষ্যে প্রকল্পের আওতায় মোট ১৬ একর জমিতে বিভিন্ন ধরনের ফলের চাষ ও পশুপালন বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বিডিও এবং কৃষি-উদ্যান পালন দপ্তরের আধিকারিকেরা গতকাল গিয়েছিলেন। খুব তাড়াতাড়ি ড্রাগন ফ্রুটের গাছগুলি লাগানো হবে, ওই দিন আমিও উপস্থিত থাকার চেষ্টা করব।” মণিদহ গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ প্রধান অঞ্জন বেরা বলেন, “একশো শতাংশ আদিবাসী অধ্যুষিত এই গ্রামটিকে সমস্ত দিক দিয়ে স্বনির্ভর করে তোলার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। ১৬ একর জমিতে বিভিন্ন ধরনের প্রকল্প রূপায়ণ করা হবে। ‌৬ একর জমিতে ইতিমধ্যে বিভিন্ন ধরনের ফলের গাছ লাগানো হয়েছে। ‌৪ একর জমিতে ড্রাগন ফ্রুট লাগানো হবে। বাকি, ৬ একর জমিতে, হাঁস-মুরগি প্রভৃতি প্রতিপালনের বিষয়টি নিয়ে ভাবা হয়েছে। ইচ্ছে আছে, গ্রামটিকে মডেল গ্রামের মতো করে সাজানোর।”

#LikeShare_TheBengalPost
৬ একর জমিতে বিভিন্ন ধরনের ফলের গাছ লাগানো হয়েছে :

.
.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে