একশো বছরের ইতিহাস ফিরিয়ে কলকাতায় ‘দোতলা বাস’, নবান্ন থেকে পুজো উদ্বোধনে মুখ্যমন্ত্রী

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, কলকাতা, ১৩ অক্টোবর: প্রায় ১০০ বছরের ইতিহাস ও ঐতিহ্যকেই আধুনিকতার মোড়কে ফিরিয়ে আনা হল কলকাতায়। ১৯২৬ সালে কলকাতার রাস্তায় প্রথম দোতলা বাস চলে। বিভিন্ন সমস্যার কারণে, সেই বাস ২০০৫ এ বন্ধ হয়ে যায়। আজ, মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) ফের শহরের বুকে গড়াবে নীল-সাদা দোতলা বাস। নবান্ন থেকে দুটি ডবল ডেকার বা দোতলা বাস আজ আর কিছুক্ষণের মধ্যেই উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

thebengalpost.in
কলকাতায় রাস্তায় দোতলা বাস :

.

জানা গিয়েছে, অত্যাধুনিক এই বাসে রয়েছে স্বয়ংক্রিয় দরজা, চওড়া সিঁড়ি, মেট্রোর মতো গন্তব্য চিহ্নিত বোর্ড, প্যানিক বটন, সিসি টিভি প্রভৃতি। পুরানো দোতলা বাসে দু’টি দরজা থাকলেও এটিতে থাকছে কেবল একটি। ৫১ সিটের এই বাসের ওপরতলায় থাকবে ১৬টি আরামদায়ক সিট, তাও খোলা আকাশের নীচে! মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রিয় নীল-সাদা রঙে রাঙানো দুটি বাসই বিএস ৪ (BS 4) গোত্রের। পশ্চিমবঙ্গ পরিবহণ নিগম ৯০ লক্ষ টাকা খরচ করে বাস দুটি তৈরি করিয়েছে। নির্মাণকারী সংস্থা জামশেদপুরের সংস্থা ‘বেবকো’। সূত্রের খবর অনুযায়ী, ধাপে ধাপে এরকম আরো ১০টি দোতলা বাস পথে নামতে চলেছে রাজ্য পরিবহণ দফতর।

thebengalpost.in
খোলা আকাশের নীচে আরামদায়ক সিট :

.

এদিকে, করোনা পরিস্থিতিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্যই, ভার্চুয়ালি পুজো উদ্ধোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে এ কথা জানান তিনি। আগামী ১৫, ১৬, ১৭ অক্টোবর নবান্ন থেকেই পুজো উদ্বোধন করবেন তিনি। ১৫ তারিখ উওর কলকাতার পুজো, ১৬ তারিখ বেহালা ও যাদবপুর এলাকার পুজো এবং ১৭ তারিখ দক্ষিণ কলকাতার পুজোগুলি উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। এই বিষয়ে আজ, মঙ্গলবার থেকেই অনলাইনে আবেদন করতে পারবে পুজো কমিটিগুলি। বিকেল পাঁচটা থেকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরু হবে। মুখ্যমন্ত্রীর হাতে থাকবে প্রদীপ, আর পুজো মণ্ডপে প্রতিমার সামনেও থাকবে প্রদীপ। সোমবার সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, “এ বছর কোথাও বারোয়ারি দুর্গাপুজো করার অনুমতি নেই, দিল্লিতে মাত্র একটি পুজোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে, কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে কোথাও পুজো বন্ধ হচ্ছে না, এ বিষয়ে করোনা নিয়ে অত্যন্ত সতর্ক থাকতে হবে রাজ্যবাসীকে।” সকলকে মাস্ক পরার সাথে সাথে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার আবেদন জানান। পুজো কমিটিগুললোকে স্যানিটাইজার রাখার কথাও বলেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “পুজো মণ্ডপে যাওয়ার সময় অবশ্যই মাস্ক পরুন, মাস্ক ছাড়া কেউ মণ্ডপে প্রবেশ করলে পুজো কমিটির দায়িত্ব তাদের যেনো মাস্ক দেওয়া হয় পরার জন্য। উৎসবের মরশুমে সংক্রমণ ঠেকাতে আমাদের প্রত্যেকে সতর্ক থাকতে হবে।”

thebengalpost.in
নবান্ন থেকেই পুজো উদ্বোধনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় :

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে