“দলের সঙ্গেই আছি” বললেন দিব্যেন্দু, “অপমানিত” হয়েই মন্ত্রিত্ব-ত্যাগ, এখনই যাচ্ছেন না দিল্লি, ঘনিষ্ঠ মহলে জানালেন শুভেন্দু

বিজ্ঞাপন

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পূর্ব মেদিনীপুর, ২৭ নভেম্বর: তৃণমূল কংগ্রেসের বিভিন্ন নেতা-মন্ত্রী, সাংসদরাই নয়, শুভেন্দু’র একাধিক পদে থাকা নিয়ে এবং পদে থেকে ও রাজনৈতিক সভা করার বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছিলেন দলের শীর্ষ নেতৃত্বও! সর্বোপরি, গতকাল এইচ আর বি সি ‘র চেয়ারম্যান পদ ছেড়ে দেওয়ার সাথে সাথেই, যেভাবে দ্রুততার সাথে প্রতি সর্বাধিক আক্রমণাত্মক কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় কে সেই পদে বসানো হয়েছে, তাতে রীতিমতো ক্ষুব্ধ ও ব্যথিত হয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। সম্প্রতি বাঁকুড়াতে, স্বয়ং দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও মন্তব্য করেছিলেন, সব জায়গাতেই আমি অবজার্ভার। লক্ষ্য রাখছি যে কার সাথে যোগাযোগ রেখেছে! দলনেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই মন্তব্যকেও হয়তো তাঁর প্রতি ‘বার্তা’ হিসেবে ধরেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। আর, তারপরই আজ (২৭ নভেম্বর), মন্ত্রিত্ব সহ এইচডিএ (হলদিয়া ডেভলেপমেন্ট অথোরিটি) ‘র পদও ছেড়ে দিয়ে, সমস্ত আক্রমণ ও চ্যালেঞ্জের জবাব দিলেন শুভেন্দু অধিকারী। তাঁর পরিবার ও ঘনিষ্ঠ সূত্রে জানিয়েছেন, এখনই বিধায়ক বা দলীয় সদস্য পদ ছাড়ছেন না। দিল্লিও যাচ্ছেন না! একাধিক পদে থাকা নিয়ে যেভাবে আক্রমণ হচ্ছিল, তাতেই তিনি ‘আহত’ হয়েছিলেন।

thebengalpost.in
পদে না থেকেও মানুষের পাশে থাকার চ্যালেঞ্জ গ্রহণ শুভেন্দু অধিকারী’র :

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে, এক সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যাচ্ছে, শুভেন্দু পদত্যাগপত্র পাঠানোর পরই, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে ফোন করেন। পদত্যাগের কারণ জানতে চান এবং আলোচনার আশ্বাস দেন। বর্ষিয়ান সাংসদ সৌগত রায়ও আশাবাদী, শুভেন্দু আলোচনায় বসবেন, দল ছাড়বেন না! তবে, তার বিশ্বস্ত কয়েকজন অনুগামীদের মাধ্যমে জানা যাচ্ছে, আলোচনা ফলপ্রসূ হবে না। ‘দাদা’ দল ছাড়তে চলেছেন! অপরদিকে, শুভেন্দু অধিকারীর ভাই দিব্যেন্দু অধিকারী একটি সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তিনি দলের সঙ্গেই আছেন, মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সঙ্গেই আছেন। কারণ, তিনিই তাঁকে বিধায়ক করেছিলেন, এখন সংসদেও পাঠিয়েছেন। তাই, শুভেন্দু’র একান্ত ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তের সাথে তাঁর বা অবশিষ্ট অধিকারী পরিবারের কোন যোগ নেই! তবে, রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, বাকি উত্তরও সময়ই দিয়ে দেবে।

thebengalpost.in
শুভেন্দু অধিকারী :

বিজ্ঞাপন

এদিকে, শুভেন্দু’কে স্বাগত জানিয়েছে বিজেপি। কৈলাস বিজয়বর্গীয় থেকে শুরু করে মুকুল রায়, দিলীপ ঘোষ সহ প্রত্যেকেই শুভেন্দু কে বিজেপিতে আহ্বান জানিয়েছেন। বিজেপি’তে তিনি যে উপযুক্ত সম্মান পাবেন সে কথাও জানিয়েছেন। অপরদিকে, ‘তৃণমূলের যে শেষের শুরু’ হয়ে গেছে, সেই আক্রমণ শুধু বিজেপির তরফ থেকেই করা হয়নি, কংগ্রেস, সিপিআইএম এর তরফ থেকেও করা হয়েছে। কংগ্রেস ও সিপিআইএম মন্তব্য করেছে, “দল ভাঙানোর খেলা শুরু করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, এবার সেই খেলাতেই শেষ হবেন তিনি নিজে বা তাঁর দল তৃণমূল কংগ্রেস!” তাঁদের সেই মন্তব্যকেই ‘সত্য’ প্রমাণিত করে, কোচবিহার দক্ষিণের বিধায়ক মিহির গোস্বামী ইতিমধ্যেই দিল্লি উড়ে গিয়েছেন বিজেপিতে যোগদান করার জন্য! আরও অনেকেই আসতে চলেছেন বলে জানিয়েছেন, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

বিজ্ঞাপন

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে