কোভিড কো-মর্বিডিটিতে মাত্র পঞ্চাশেই চলে গেলেন মেদিনীপুরের আরেক প্রিয় মানুষ, সাংস্কৃতিক জগতে শোকের ছায়া

.

মণিরাজ ঘোষ, মেদিনীপুর, ২২ নভেম্বর: সত্যিই বিষময় দু’হাজার বিশ! একে একে হারিয়ে যাচ্ছেন বিভিন্ন জগতের স্বনামধন্য ব্যক্তিত্বরারা। মেদিনীপুর শহর তথা পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা আজ হারাল সাংস্কৃতিক জগতের এক প্রতিভা সম্পন্ন ব্যক্তিত্বকে। মাত্র পঞ্চাশেই চলে গেলেন কবি, চিত্রকর, স্বল্প দৈর্ঘ্যের চিত্র পরিচালক তথা ‘চিত্রকাব্য’ পত্রিকার সম্পাদক পার্থসারথি শ্যাম (৫১)। মেদিনীপুর শহর তথা অবিভক্ত মেদিনীপুরের সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলের সুপরিচিত এই ব্যক্তিত্ব, কোভিড কো-মর্বিডিটির করাল গ্রাসে প্রাণ হারালেন, আজ (২২ নভেম্বর) সকাল ৭ টা ৫২ মিনিটে, শালবনী করোনা হাসপাতালে।

thebengalpost.in
পার্থসারথি শ্যাম (৫১) :

.
.

মেদিনীপুর শহরের কুইকোটার এই বাসিন্দা আপাদমস্তক সাহিত্যপ্রেমী ও সৃজনশীল মানুষ ছিলেন। পেশায় ছিলেন, ইন্টেরিয়র ডিজাইনার (Interior Designer) বা গৃহসজ্জার কারুশিল্পী। সৌন্দর্য সৃষ্টি এবং শিল্প সৃষ্টি নিয়ে জীবন অতিবাহিত করা পার্থসারথি শ্যাম অবিভক্ত মেদিনীপুরের নাটক, কবিতা, আবৃত্তি, চলচ্চিত্রের জগতে অত্যন্ত পরিচিত মুখ ছিলেন। মেদিনীপুর শহরের এই শিল্পী মানুষটি গত কয়েক বছর ধরেই কিডনির দুরারোগ্য ব্যাধিতে ভুগছিলেন। তাঁর অত্যন্ত পরিচিত কবি ও সমাজকর্মী সিদ্ধার্থ সাঁতরা, বাম আন্দোলনের একনিষ্ঠ কর্মী এবং সমাজসেবী বিজয় পাল প্রমুখরা জানিয়েছেন, গত এক বছর ধরেই পার্থবাবুর ডায়ালিসিস (Dialysis) চলছিল। তবে, অত্যন্ত সাবধানতার সাথে নিজেকে তিনি সচল রেখেছিলেন। তবে, সম্প্রতি (১৯ নভেম্বর) তিনি করোনা সংক্রমিত হয়েছিলেন। ফলে, কোভিড এবং কিডনির সংক্রমণে তিনি জীবনযুদ্ধে হেরে যান! তাঁর অসংখ্য গুণমুগ্ধ অগ্রজ ও অনুজ’রা বিস্মিত ও বিধ্বস্ত হয়ে গেছেন, এই মর্মান্তিক শোক সংবাদে। সাংবাদিক দেবনাথ মাইতি জানালেন, “আমার বিদ্যালয় জীবনের বন্ধু ছিলেন। একসাথে ‘চতুরঙ্গ’ দলে নাট্যচর্চা করেছি। ওনার স্ত্রীও একজন নৃত্যশিল্পী, বর্তমানে একজন প্রতিষ্ঠিত বিউটিশিয়ান। এই শোক সংবাদ মেনে নিতে খুব কষ্ট হচ্ছে!”

thebengalpost.in
পার্থসারথি শ্যাম (৫১) :

.

স্বাস্থ্য দপ্তর এবং পরিবার-পরিজন সূত্রে জানা গেছে, জ্বর সহ বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেওয়ায় গত ১৯ নভেম্বর তিনি মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে গিয়ে আরটি-পিসিআরের জন্য নমুনা দিয়েছিলেন। ওই দিনই সন্ধ্যায় তাঁর রিপোর্ট পজিটিভ আসে! এরপরই, ২০ নভেম্বর সকালে তাঁকে লেভেল ফোর এবং ডায়ালিসিসের ব্যবস্থা যুক্ত শালবনী করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে, শেষরক্ষা হয়নি! আজ সকালে (২২ শে নভেম্বর, ৭ টা ৫২ মিনিটে) তাঁর অকাল প্রয়াণ ঘটে! তাঁর স্ত্রী, একমাত্র কন্যা সহ পরিবার-পরিজনেরা শোকে মুহ্যমান হয়ে পড়েছেন। স্মৃতি রোমন্থন করতে গিয়ে শহরের একাধিক শিল্পী, সাহিত্যিক, নাট্যকর্মী, সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, “শহরের এই শিল্পী মানুষের অকাল প্রয়াণে আমরা শোকস্তব্ধ! জীবনে উনি এবং ওনার স্ত্রী দোলা দেবী অনেক লড়াই করেছেন। ওনারা ছিলেন ‘রিয়েল ফাইটার’! তা সত্ত্বেও কিভাবে এই যুদ্ধে হেরে গেলেন, আমরা বুঝতে পারছি না! স্ত্রী, একমাত্র কন্যা সহ ওনার পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাই।” প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এর আগে মেদিনীপুর শহরের একাধিক শিক্ষক (কলেজিয়েট স্কুলের আশিস কর), চিকিৎসক (মেডিক্যাল কলেজের এস এন বেরা, বীরভূম জেলা হাসপাতালের অমল রায়), আইনজীবী (সমরেন্দ্র নাথ দাস) রা কোভিডে প্রাণ হারিয়েছেন। সম্প্রতি (২৯ অক্টোবর), দুর্ঘটনায় অকাল-প্রয়াত হয়েছেন মেদিনীপুরের আরেক প্রিয় মানুষ, চিত্রগ্রাহক ও স্থানীয় টিভি চ্যানেলের প্রতিষ্ঠাতা সুবীর সামন্ত।

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে