জঙ্গলমহলের শত শত অপু-দুর্গাদের কাছে পুজোর আনন্দ নিয়ে জঙ্গলমহলের আপনজনেরা

thebengalpost.in
নতুন জামা পেয়ে আনন্দ :
.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, শালবনী, ২৩ অক্টোবর: “ও মাগো মা দাও না পরিয়ে,
নতুন জামা ফ্রক দাওনা পরিয়ে….” শুধু জঙ্গলমহল কেন, দুর্গোৎসবের আবহে এ গান বাংলার প্রতিটি কচিকাঁচার হৃদয়সঙ্গীত। উচ্চ-নীচ, ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে বাংলার প্রতিটি ঘরে যে অপু-দুর্গা’রা হেসে-খেলে বেড়ায় সারাবছর, পুজোর সময় তাদের একটাই আবেদন, একটাই আনন্দ ‘নতুন জামা’কে ঘিরে! পুজোর সময় মাত্র একজোড়া (আধুনিক শব্দে, এক সেট) নতুন জামাই যেন তাদের কাছে ‘সাত রাজার ধন এক মানিক’ কিংবা কোনো আলাদীনের আশ্চর্য প্রদীপ! আর সেই আলাদীনের আশ্চর্য প্রদীপ জোগাড় করতে গিয়েই, জঙ্গলমহলের কোনো কোনো বাবা-মা হিমশিম খান, কেউবা অসহায় হরিহর-সর্বজয়া (অপু, দুর্গার বাবা-মা)’র মতো গালে হাত দিয়ে উঠোনে বসে থাকেন! আর, তাঁদের কাছে সত্যি সত্যিই যখন ‘আলাদীনের আশ্চর্য প্রদীপ’ নিয়ে হাজির হয়ে যান, ‘ছত্রছায়া’র মতো সংগঠনের সদস্যরা, তখন সত্যি সত্যিই যেন মা মহামায়া’র মর্ত্যে আগমন সার্থক হয়ে ওঠে। আর, শিব-দুর্গার মতোই জঙ্গলমহলের শত শত হরিহর-সর্বজয়ারা তাঁদের আনন্দাশ্রু’র আশীর্বাদে ভরিয়ে দেন, এই মানবপ্রেমের জয়গান গাওয়া সদস্য-সদস্যাদের।

thebengalpost.in
নতুন জামা পেয়ে আনন্দ :

.
.

জঙ্গলমহল শালবনীর আপনজন, সুখ-দুঃখের সাথী “ছত্রছায়া” গ্রুপের অন্যতম কান্ডারী নূতন ঘোষ বললেন, “প্রতি বছরের মতো এই বছরও শারদীয়া দুর্গোৎসব উপলক্ষে, শালবনী ছত্রছায়া গ্রুপের পক্ষ থেকে শালবনী ব্লক ও গড়বেতা ব্লকের বেশ কয়েকটি আদিবাসী অধ্যুষিত গ্রামের ১০০০ এরও বেশি কচিকাঁচাদের হাতে নতুন বস্ত্র তুলে দিতে গত দু’দিন ধরে, সকলের সহযোগিতায়। বর্তমান সময়ে, কোভিড অতিমারীকে উপেক্ষা করেও আমরা এই কাজটি সফলভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছি এবং পরিস্থিতির দাবি মেনে আজ, সপ্তমী ও অষ্টমীতেও আমাদের এই বিতরণ পর্ব চলবে। এভাবেই আমরা, পুজোর আনন্দকে সর্বজনীন করে তুলতে চেয়েছি, বাঙালির সর্বশ্রেষ্ঠ উৎসবকে দিতে চেয়েছি সার্থকতা! সকলের প্রচেষ্টায় আমাদের এই সামান্য আয়োজন যে কত বাবা-মা ও সন্তানের মুখে হাসি ফুটিয়েছে, তা বলাই বাহুল্য! এই আনন্দের সত্যি কোনো ভাগ হয় না।”

thebengalpost.in
নতুন জামা পেয়ে আনন্দ :

.

শুধু ‘ছত্রছায়া’ নয়, পুজোর এই ক’দিনের আনন্দকে সর্বজনীন করে তুলেছে, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা তথা মেদিনীপুর শহরের অনেকগুলি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। মেদিনীপুর ছাত্রসমাজ, দিশারী ফাউন্ডেশন, দুঃস্থের ছায়া, বিদ্যাসাগর ফাউন্ডেশন, শালবীথি, সংকল্প ফাউন্ডেশন, শ্রদ্ধা ফাউন্ডেশন, মানিকলাল ফাউন্ডেশন, সবুজ স্বপ্ন, আনন্দম, হেল্পিং হ্যান্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটি, নীলাম্বর সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি, চুনী কোটাল চ্যারিটেবল ট্রাস্ট, ডঃ আম্বেদকর সোসাইটি, আম্মা জনসেবা পরিষদীয় ওয়েলফেয়ার সোসাইটি প্রভৃতি আরো অনেক অনেক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। অতিমারী’র এই সংকটময় সময়ে মানবিকতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে এই সমস্ত স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও তাদের শুভাকাঙ্ক্ষীরা যেভাবে মনুষ্যত্বের জয়গান গেয়েছেন, তাতে উৎসব পালিত হোক বা না হোক, শত হৃদয়ের আনন্দ-উচ্ছ্বাসে শারদীয়া যে সার্থক হয়ে উঠেছে তা বলাই বাহুল্য!

thebengalpost.in
নতুন জামা পেয়ে আনন্দ :

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে