শক্তি সঞ্চয় করে ক্রমশ অন্ধ্রের দিকে এগোচ্ছে ঘূর্ণিঝড় ‘গতি’, রাজ্যে প্রভাব না পড়লেও আগামী সপ্তাহে ফের নিম্নচাপের ভ্রুকুটি

.

বিশেষ প্রতিবেদন, সায়নী দাশগুপ্ত, ১২ অক্টোবর: সম্প্রতি মে মাসে (২০ মে, ২০২০), আমফানের দাপটে তছনছ হয়ে গিয়েছিল প্রায় গোটা বাংলা। সেই ঘূর্ণিঝড়ের দগদগে ঘা এখনও ‘মানুষের মনে’ (জনজীবনেও) দাগ কেটে আছে। তারই মধ্যে আরো এক বড়সড় ঘূর্ণিঝড়ের ইঙ্গিত দিল আবহাওয়া দপ্তর। তবে, এর প্রভাব বাংলায় না পড়লেও, অন্য পাঁচটি রাজ্যে তাণ্ডব প্রায় শুরু হওয়ার পথে!

thebengalpost.in
আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস :

.

প্রসঙ্গত, গত ৩০ সেপ্টেম্বর আন্দামান সাগরে তৈরি হয়ছিল নিম্নচাপ, যা সাগরের বুকে নিজের শক্তি সঞ্চয় করে, অতি গভীর ঘূর্ণিঝড়ের আকার ধারণ করেছে। ধীরে ধীরে এর অভিমুখ অন্ধ্র উপকূলের দিকে সরে যাচ্ছে। আগামীকাল অর্থাৎ মঙ্গলবার রাতের মধ্যে, অন্ধ্রপ্রদেশের বিশাখাপওনমের আশপাশে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা! ঘন্টায় ৮০ কিমি বেগে ঝড় বইবে অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলেঙ্গানা, পূর্ব মহারাষ্ট্রের বিস্তীর্ণ এলাকায়। আজ (১২ অক্টোবর), সন্ধ্যার মধ্যেই তা অতি থেকে অতিগভীর নিম্নচাপে রূপান্তরিত হবে। পাশাপাশি, সমুদ্র উত্তাল থাকার কারণে, আগামী ৩ দিন মৎস্যজীবীদের গভির সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। দিল্লির মৌসম ভবন জানিয়েছেন, আজ (১২ অক্টোবর) রাত থেকেই অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলেঙ্গানা, কর্ণাটক, ওড়িশা ও পূর্ব মহারাষ্ট্রে বৃষ্টি শুরু হয়ে যাবে। আগামী ২ দিন বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে। তবে, আপাতত পশ্চিমবঙ্গে ভারী বৃষ্টির কোনো আশঙ্কা নেই। বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি থাকায়, আর্দ্রতা জনিত অস্বস্তি বজায় থাকবে। তবে, আগামী সপ্তাহে আরো একটি নিম্নচাপ জন্ম নিতে চলেছে আন্দামান সাগরে। যদিও, এই নিম্নচাপ বা ঘূর্ণিঝড়ের অভিমুখ অন্ধ্রের দিকে হবেনা। সাধারণত, পরপর দুটি নিম্নচাপ একই পথে এগোয় না, তাদের মধ্যে এক মাসের ব্যবধান থাকে। কিন্তু, সেক্ষেত্রে এই নিম্নচাপ কোনদিকে অভিমুখ করে এগোবে তা এখুনি বলতে পারছেন না আবহাওয়া দপ্তর।

.
.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে