কালীপুজোর আগেই সুখবর! সংক্রমণ কমল পশ্চিম মেদিনীপুরে, গত দু’দিনে সংক্রমিত মাত্র ১৮১ জন, মেদিনীপুরে ৩১, খড়্গপুরে ২৬

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ৭ নভেম্বর: দুর্গাপুজোর ঠিক আগে থেকে (মোটামুটিভাবে ১৮ অক্টোবর থেকে) পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার করোনা সংক্রমণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আসা শুরু করেছিল। প্রতিদিন ১৫০-১৬০ থেকে কমতে কমতে ১১৮-১২০ তে নেমে গিয়েছিল ধাপে ধাপে। সেই ধারা অব্যাহত ছিল, পুজোর পর ৩-৪ দিন পর্যন্ত। জেলা স্বাস্থ্য ভবনের তথ্য অন্তত সেকথাই বলেছে। তবে, পুজোর ৩-৪ দিন পর থেকে ফের সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। দু’একদিন মোট সংক্রমণ কম দেখালেও, ওই ক’দিন টেস্টও কম হয়েছে। ৪ নভেম্বর, বুধবার করোনা সংক্রমিত হয়েছিলেন ১৬৬ জন। এরপর, বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার (অর্থাৎ, গতকাল) সংক্রমণ ফের অনেকটাই কমল! টেস্টের সংখ্যা ১২০০ র বেশি হলেও বৃহস্পতিবার সংক্রমিত হয়েছেন মাত্র ৯৬ জন এবং শুক্রবার (৬ নভেম্বর) সংক্রমিত হয়েছেন ৮৫ জন। গত দু’দিনে করোনা সংক্রমিত ১৮১ জন। তবে, গত দু’দিনে সুস্থতার সংখ্যাও একটু কম, ফলে সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী জেলার সুস্থতার হার ৯২.৪৫ থেকে কমে ৯১.৫২ হয়েছে! এই মুহূর্তে জেলায় মোট করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা ১৪৫৪৭ এবং চিকিৎসাধীন আক্রান্তের সংখ্যা ৯৮৮ (যে সংখ্যাটা ৩ রা নভেম্বর ৮৩৩ ছিল)। এখনও পর্যন্ত জেলায় মৃত্যু হয়েছে ২১১ জনের।

thebengalpost.in
শালবনী করোনা হাসপাতাল পরিদর্শনে মহকুমাশাসক দীননারায়ণ ঘোষ :

.
.

এদিকে, গত দু’দিনে মেদিনীপুর শহর ও শহরতলীতে ৩১ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। গত ৫ নভেম্বর, মেদিনীপুর শহরের রামকৃষ্ণনগরের একই পরিবারের দুই কিশোরী (১৬ ও ১৪) সহ মোট ৩ জন এবং ক্ষুদিরামনগরে এক প্রৌঢ় করোনা সংক্রমিত হয়েছেন, আরটি-পিসিআর অনুযায়ী। এছাড়াও, র‌্যাপিড ও ট্রুনেট অনুযায়ী যারা সংক্রমিত হয়েছেন, তাদের সঠিক ঠিকানা জানা যায়নি। তবে, গতকাল মেদিনীপুর শহর ও শহরতলীতে আরটি-পিসিআর, র‌্যাপিড ও ট্রুনেট অনুযায়ী যে ২৭ জন সংক্রমিত হয়েছেন তাঁরা হলেন, আবাসে এক পরিবারের এক শিশুকন্যা (৫) ও এক বালক (১০)। তাতিগেড়িয়াতে একই পরিবারের ৩ জন সহ ওই এলাকায় মোট ৪ জন, রাঙ্গামাটি ও ভগবতী পল্লী (বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা) মিলিয়ে ২ জন এবং যমুনাবালি, শরৎপল্লী, প্রদ্যোৎনগর, চিড়িমারসই প্রভৃতি এলাকায় ১ জন করে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। আইডিবিআই মেদিনীপুর ব্রাঞ্চের ১ জন এবং কোতোয়ালী থানা এলাকায় আরো ৭ জন সংক্রমিত হয়েছেন। গুড়গুড়িপাল থানার চিলগোড়া, গুড়গুড়িপাল, ভুনিহাটা মিলিয়ে ৬ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। স্বাভাবিকভাবেই, সারা জেলায় করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে এলেও, মেদিনীপুর শহরের কয়েকটি এলাকার পরিবার ও গোষ্ঠী সংক্রমণের ধারাবাহিকতা প্রমাণ করছে, করোনাসুর বহাল তবিয়তেই ঘোরাফেরা করছে!

thebengalpost.in
করোনা ছেড়ে যায়নি খড়্গপুর কেও :

.

এদিকে, গত দু’দিনে খড়্গপুরে করোনা সংক্রমিত হয়েছেন মোটামুটিভাবে ২৬ জন। এরমধ্যে রেল সূত্রে ৬ জন, আইআইটি সূত্রে ৬ জন এবং বাকিরা বারবেটিয়াতে একটি পরিবারের ৩ জন, তালবাগিচা, ইন্দা প্রভৃতি এলাকার বাসিন্দা। শালবনীর গোদাপিয়াশালের এক প্রৌঢ়ার (৬৫) রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে গতকাল। অন্যদিকে, গত দু’দিনে গড়বেতা এলাকায় ৭ জন (আমলাশুলি, আমলাগোড়া, ফতেসিংপুর), চন্দ্রকোনা রোড এলাকায় ৫ জন, সবং ও পিংলা এলাকায় ২ জন এবং ডেবরা এলাকায় ৫ জন (মধুবনপুর, গোটগেড়িয়া, ডেবরা, বালিচক, হায়াপথ) করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে