ভালো আছেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য! সাড়া দিচ্ছেন চিকিৎসায়, ভেন্টিলেশন মুক্ত হওয়ার পথে ‘কমরেড’

বিজ্ঞাপন

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, কলকাতা, ১১ ডিসেম্বর: ভালো আছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। সাড়া দিচ্ছেন চিকিৎসায়। শুক্রবার সকালে, হাসপাতাল (উডল্যান্ডস) কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে- প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন। ঘুমের ওষুধ বন্ধ করা হয়েছে। তাঁর চেতনা ফিরছে ধীরে ধীরে। ভেন্টিলেশন খোলার প্রক্রিয়া শুরু করা হবে তাঁর পরিবারের সাথে কথা বলে। তার আগে দেখতে হবে যে তিনি ভেন্টিলেশন ছাড়া কতটা সাড়া দিচ্ছেন। আপাতত রাইলস টিউবের মাধ্যমে বুদ্ধ বাবুকে দেওয়া হচ্ছে তরলজাতীয় খাবার। সংক্রমণ ঠেকাতে চলছে অ্যান্টিবায়োটিক। এদিন সকালে, অসুস্থ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী’কে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলেন সিপিআইএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র ও অন্যান্য নেতারা।

thebengalpost.in
অসুস্থ বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য (ছবি : ৯ ডিসেম্বর, সংগৃহীত) :

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত বুধবার (৯ ডিসেম্বর) দুপুরে ফুসফুসের সংক্রমণ নিয়ে উডল্যান্ডস হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। তাঁর করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। তবে, শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে, তাঁকে মেকানিকাল ভেন্টিলেশন সাপোর্ট দেওয়া হয়। অবশেষে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর থেকে তিনি চিকিৎসায় সাড়া দিতে শুরু করেন। এদিকে, ‘কমরেড’ বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের আরোগ্য কামনায় দল-মত নির্বিশেষে রাজ্যের সকল মানুষ! রাজ্যপাল থেকে মুখ্যমন্ত্রী সকলেই তাঁকে হাসপাতালে গিয়ে দেখে এসেছেন এবং দ্রুত আরোগ্য কামনা করছেন।

thebengalpost.in
মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের বাসভবনে রাজ্যপাল (ফাইল ছবি) :

বিজ্ঞাপন

রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় রাজ্যের আপামর বুদ্ধ-অনুরাগীদের সুরে নির্দ্বিধায় বলেছেন, “তাঁর মতো স্বচ্ছ, পরিশীলিত ও সংস্কৃতি মনস্ক মানুষের সান্নিধ্য আমাদের বড় প্রয়োজন। দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন বুদ্ধদেব বাবু।” পরিবারের সাথে কথা বলে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী’র দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। এর আগেও, রাজ্যপাল বা মুখ্যমন্ত্রী, বরাবরই বুদ্ধ বাবুর শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিয়েছেন, গিয়েছেন তাঁর দু’কামরার পাম অ্যাভেনিউর ফ্ল্যাটে। আসলে, আপাদমস্তক সাদা ধবধবে এই মানুষটির সঙ্গে রাজনৈতিক মতপার্থক্য যাই থাকুক না কেন, তাঁর প্রগতিশীল ভাবনা, সাম্যবাদী চেতনা, ব্যতিক্রমী জীবনাদর্শ, রাজ্যের জন্য এবং রাজ্যের আপামর যুব সম্প্রদায়ের জন্য কর্মসংস্থানের ঐকান্তিক প্রচেষ্টা দলমত নির্বিশেষে সকলের হৃদয়ে এক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার স্থান করে দিয়েছে। বেঁচে থাকার এই লড়াইতে, তিনি শুধু বামপন্থীদের নয়, আপামর রাজ্যবাসীর ‘কমরেড’ (সহযোদ্ধা) হয়ে উঠেছেন!

বিজ্ঞাপন

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে