রাঢ় বঙ্গ তথা জঙ্গলমহলবাসীর নিজস্ব উৎসব “বাঁদনা” : বিশেষ প্রতিবেদন

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট বিশেষ প্রতিবেদন, রাকেশ সিংহ দেব, ১৫ নভেম্বর: সিংভূম, মানভূম তথা অধুনা সীমান্তবাংলার মহুল, শাল, পলাশ ঘেরা ভূখন্ডের কৃষিজীবী গরীবগুর্বো মানুষের প্রাণের উৎসব ‘বাঁদনা’র শব্দগত উৎপত্তি সম্পর্কে নানা পণ্ডিতের নানা মত। কিন্তু, এই পরবের আচার-ক্রিয়াকর্মগুলোর প্রতি নজর রাখলে বোঝা যায় আসলে ‘বন্দনা’ থেকেই ‘বাঁদনা’ কথাটি এসেছে। আসলে, গরু-মহিষ, গবাদিপশু ও বিভিন্ন কৃষি যন্ত্রপাতি হলো কৃষিকাজের প্রধান অবলম্বন। জল-জঙ্গল-জমিন কেন্দ্রিক জীবনযাত্রায় উৎপাদনের হাতিয়ার গবাদি পশুর সঙ্গে কৃষি যন্ত্রপাতির অবদানের কথা স্মরণ রেখে কৃষি কাজে নিযুক্ত কুড়মি জনগোষ্ঠীর মানুষজন তাদের ধন্যবাদ জানাতে বাঁদনা পরব পালন করে। এটা আসলে তাদের নিজস্ব সাংস্কৃতিক ভাবধারায় সম্পৃক্ত ‘Thanks giving Festival’।

thebengalpost.in
জঙ্গলমহলে “বাঁদনা” পরবের ঐতিহ্য :

.
.

বাংলার পশ্চিমাঞ্চলের টোটেমিক কুড়মি জাতির অন্যতম প্রধান উৎসব হল বাঁদনা, এই নিয়ে কোনো দ্বিমত নেই। কুড়মি জাতির সংখ্যাধিক্য ও সাংস্কৃতিক উৎকর্ষের কারণেই এই পরব আজ একটি গোষ্ঠীর মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই, সম্প্রসারিত হয়েছে সমষ্টির মধ্যে। রীতি অনুযায়ী কার্তিক অমাবস্যার পূর্বদিন থেকে মোট পাঁচ দিন ব্যাপী বাঁদনার মৌতাতে ম-ম করে বাতাস। গৃহস্থের গোবর নিকানো উঠোনে হাজির হয়- ঘাওয়া, অমাবস্যা, গরইয়া, বুঢ়ী বাঁদনা ও গুঁড়ি বাঁদনার মতো নেগাচারে সমৃদ্ধ বাঁদনা পরবের উৎসবমুখর দিনগুলি। বাঁদনা পরবের সবচেয়ে আকর্ষণীয়, রীতি বা নেগাচার হল গরু খুঁটানো। কার্তিক অমাবস্যায় শুরু হওয়া পরবের দ্বিতীয়ার দিন বিকেলে গাঁয়ের প্রান্তের মাঠে সবাই ভিড় জমায়। শক্ত খুঁটিতে বাঁধা হয় সুপুষ্ট, বলবান, তেজী বলদ আর দুর্দম, উদ্দাম কপিলাদের। সাহসী পুরুষরা তাদের সামনে মৃত পশুর চামড়া ধরে! সমবেত কুলকুলি শুনে উন্মত্তের মতো ফুঁসে ওঠে খুঁটানো গরুটি খুঁটিকে ঘিরে চরকির মতো পাক খায়, কখনো প্রবল বিক্রমে গুঁতো মারে চর্মখণ্ডে! আপাতদৃষ্টিতে এটি বিনোদন হিসেবে মনে হলেও এর পেছনে রয়েছে অতীত পরম্পরার প্রয়োজনীয়তাকে রোমন্থন করা। অরণ্য বেষ্টিত এই ভূখণ্ডটি ছিল শ্বাপদসঙ্কুল। প্রায়ই হানাদার হিংস্র জন্তুর কবলে পড়ত গবাদি পশুরা। কাজেই অস্তিত্বের জন্য সংগ্রামে অবতীর্ণ হয়ে আত্মরক্ষার কৌশল রপ্ত করে নিজেরা। অনুরূপ কসরত শিক্ষা দেওয়া হয় গৃহপালিত পশুদেরও। বর্তমান সময়ের গোরুখুঁটা সেই কসরত শিক্ষারই একটি পরিবর্তিত প্রতীকী রূপ।

thebengalpost.in
জঙ্গলমহলে “বাঁদনা” পরবের ঐতিহ্য :

.

“বাঁদনা” পরবের অন্যতম আকর্ষণ হলো এর ‘অহিরা গীত’ বা গানগুলি। গ্রামে গ্রামে চাষের কাজে সারা বছর ব্যস্ত থাকলেও বাঁদনা পরবের দিনগুলি সম্পূর্ণ বিশ্রাম। রাতে গরু ঘুমাবে, মানুষ জেগে থাকবে। কেউ যাতে ঘুমিয়ে না পড়েন সেই জন্য ধামসা মাদল বাজিয়ে বাড়ি বাড়ি জাগরণ করেন আমুদে গ্রামবাসীরা। এদের ধাঙ্গড়িয়া বা ঝাঁঙ্গড়িয়া বলে। অমাবস্যার রাতে গো-জাগানোর কাজও করে এরা। গৃহস্থেরা এদের পিঠে পুলি দিয়ে খুশি করেন। তিন ধরনের অহিরা গান আছে। যথা- ক. গরু জাগানোর গান খ. ডহইর্যা। গান – অমাবস্যার রাত্রি তার বাড়ি থেকে অন্য বাড়িতে যাওয়ার সময় জাহিরা গানগুলি বলে গ. গরু বা মোষ খেলানোর গান – গরু খুঁটানোর দিন গরুকে উদ্দেশ্য করে যে গান গাওয়া হয়। গ্রাম্য লোককবিদের রচিত, লোকমুখে প্রচলিত অহিরাগুলির মূলভাষা কুড়মালি। পুরুলিয়ার উত্তরাংশে, পশ্চিম মেদিনীপুর, ছোটনাগপুরের হাজারিবাগ, রাঁচীর পাঁচ পরগণা অঞ্চলে প্রচলিত অহিরাতে কখনো ফুটে ওঠে সরল কথায় মানব জীবনের জীবনদর্শন। অনার্য সভ্যতার প্রতিনিধিদের একান্ত নিজস্ব বাঁদনা পরবের স্মৃতিটুকু বেঁচে থাকে মনের গভীরে। প্রবহমান সময়ে সুবর্ণরেখা, কংসাবতী, দামোদর নদীতে বহু জল গড়িয়েছে। কুড়মি জাতির উপর, কুড়মালী ভাষা, সংস্কৃতির উপর, সারনা ধরমের উপর সময়ে সময়ে বহু ঘাত প্রতিঘাত এসেছে , তথাপি কুড়মি জাতি তার নিজস্ব জাতিসত্ত্বা, ভাষা, সংস্কৃতি, ধর্ম অক্ষত অবস্থায় বুকে আঁকড়ে রেখেছে। প্রত্যেকেই বদ্ধপরিকর বর্তমান বঞ্চনা, অবহেলা, প্রহসনের অবসান ঘটিয়ে এক নতুন ভোর দেখতে।

thebengalpost.in
জঙ্গলমহলে “বাঁদনা” পরবের ঐতিহ্য :

thebengalpost.in
বিজ্ঞাপন :

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে