তৃণমূল কংগ্রেস ও পুলিশের মিলিত চক্রান্তে খুন বিজেপি কর্মী, মারাত্মক অভিযোগ পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা বিজেপির

Advertisement

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ১৯ জুন : দাঁতনে উভয়পক্ষের রাজনৈতিক সংঘর্ষের ফলে বৃহস্পতিবার দুপুরে বিজেপি কর্মী পবন জানা (২৫)’র মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাতে প্রথমে তাকে মেদিনীপুর মেডিক্যাল ও পরে কলকাতায় স্থানান্তরিত করা হয়। সেখানেই বৃহস্পতিবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়। সম্প্রতি ভিন রাজ্য থেকে ফিরে আসা, পবন জানা নামে ঐ যুবককে লোহার রড, তরোয়াল দিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে বলে অভিযোগ জেলা বিজেপি’র। বৃহস্পতিবার রাতে এই বিষয়ে বিজেপি’র পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সহ সভাপতি অরূপ দাস মেদিনীপুর শহরে দাঁড়িয়ে বললেন, “আমি দায়িত্ব নিয়ে বলছি দাঁতন থানার আইসি, মোহনপুর থানার ওসি’র সহযোগিতায় তৃণমূল আমাদের কর্মীকে হত্যা করেছে। এই ঘটনার জন্য একযোগে দায়ী জেলা তৃণমূল কংগ্রেস ও পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশ।”

Advertisement

অপরদিকে, তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি বৃহস্পতিবার রাতে পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন, “বিজেপি’র গ্রাম্য-বিবাদের জেরেই খুন হয়েছে তাদের কর্মী। দীর্ঘদিন ধরে ওই এলাকায় বিজেপি গ্রামবাসীদের উস্কানি দিচ্ছিল, তারই ফলশ্রুতিতে এই ঘটনা।”

দ্য বেঙ্গল পোস্ট
নিহত বিজেপি কর্মী পবন জানা :

এদিকে এই ঘটনার প্রতিবাদে জেলা বিজেপি’র সভাপতি শমিত দাস, দুই সহ-সভাপতি শিবু পানিগ্রাহী ও শুভজিৎ রায়ের নেতৃত্বে দাঁতন থানার সামনে অবস্থান বিক্ষোভে বসেন বিজেপি কর্মীরা। ঘটনাস্থলে দেখা দেয় চরম উত্তেজনা! বিশাল বাহিনী নিয়ে পৌঁছন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজী সামসুদ্দিন আহমেদ। বিজেপি’র তরফ এই ঘটনার জন্য সরাসরি দাঁতন থানার আইসি’র দিকে আঙুল তোলা হয়। জেলা বিজেপি’র সহ-সভাপতি শিবু পানিগ্রাহী বলেন, “দীর্ঘদিন ধরে পুলিশের মদতে তৃণমূল এই এলাকায় সমস্ত রকম দুর্নীতি ও দুষ্কৃতীমূলক কাজকর্ম চালিয়ে যাচ্ছিল। বিজেপি যখন গ্রামবাসীদের নিয়ে প্রতিবাদ শুরু করলো, মারাত্মক সব অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা শুরু করল তৃণমূল। যার ফলশ্রুতিতেই এই ঘটনা! এর সম্পূর্ণ দায় পুলিশের। আমরা অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে বলেছি, মানুষের কাছে এর জবাব দিতেই হবে।”
দাঁতন ছাড়াও মেদিনীপুর শহর সহ জেলা ও জেলার বাইরে বিভিন্ন স্থানে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিক্ষোভ ও পথ অবরোধ করল বিজেপি।

দ্য বেঙ্গল পোস্ট
দাঁতনে পুলিশের কাছে জেলা বিজেপি নেতৃত্ব :