“সকলের তরে সকলে আমরা”, দশম বিবাহ বার্ষিকীতে বার্তা দিলেন ‘অরণ্য সুন্দরী’র পাল দম্পতি

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, ঝাড়গ্রাম, ১ নভেম্বর : “সকলের তরে সকলে আমরা”- দশম বিবাহ বার্ষিকীতে এই বার্তাই দিলেন ‘অরণ্য সুন্দরী’র পাল দম্পতি। অতিমারী’র আবহে, নিজেদের দশম বিবাহ বার্ষিকী একটু অন্যভাবে উদযাপন করলেন ঝাড়গ্রাম জেলার গোপীবল্লভপুর ২ নং ব্লকের জুনশোলা গ্রামের বাসিন্দা পেশায় রেলওয়ে কর্মচারী বিশ্বজিৎ পাল ও তাঁর স্ত্রী গৃহবধূ রূপশ্রী পাল। ইচ্ছে ছিল, নিজেদের আত্মীয় বন্ধু বান্ধবের সাথে নিয়ে একটু ধূমধাম সহকারে পালন করার। একইসঙ্গে, দশম বিবাহ বার্ষিকী স্মরণীয় করে রাখতে সমাজের জন্য কিছু করার তাগিদও ছিল! তবে, প্রথম ইচ্ছে পূরণের ক্ষেত্রে বাধ সাধলো, কোভিড নাইনটিন! তাই বাড়িতে ছোট অনুষ্ঠান করে গুরুজনের আশীর্বাদ নিয়েছেন পাল দম্পতি। কিন্তু, করোনাসুর তাঁদের দ্বিতীয় ইচ্ছে পূরণে অর্থাৎ সমাজের জন্য কিছু করার প্রচেষ্টায় বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি!

thebengalpost.in
বিবাহ বার্ষিকীতে মানুষের পাশে থাকার বার্তা ‘অরণ্য সুন্দরী’র পাল দম্পতির :

.
.

নিজেদের দশম বিবাহ বার্ষিকী উপলক্ষে, শনিবার (৩১ অক্টোবর) তাঁরা আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া দশ জোড়া দম্পতির হাতে ‘উপহার’ হিসেবে তুলে দিলেন, নতুন পোশাক আশাক। অতিমারী’র ভয়াবহ পরিস্থিতিতে, দেশের অনেক পরিবার বা অনেক দম্পতি আর্থিক সংকটে ভুগছেন। অনেকেই হারিয়েছেন নিজেদের জীবিকা বা পেশা। ছেলে মেয়েদের নিয়ে হাসিমুখে থাকতে ভুলে গেছেন মহামারীর সৌজন্যে! আর্থিক দিক থেকে পিছিয়ে থাকা, জঙ্গলমহলের এমনই দশ জোড়া দম্পতির সাথে নিজেদের ‘আনন্দ’ ভাগ করে নিলেন বিশ্বজিৎ বাবু ও রূপশ্রী দেবী। এদিন তাঁরা জুনাশোল গ্রামের দশ জোড়া দম্পতির হাতে নতুন পোশাক উপহার হিসেবে তুলে দিলেন। নিজের ছেলে-বৌমার এই কাজে খুশি বিশ্বজিৎ বাবুর বাবা অমৃত পাল ও মা অঞ্জলী পাল। প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগে নিজের ছেলে রিদম এর জন্মদিনেও ডেবরার একটি প্রতিবন্ধী স্কুলের বাচ্চাদের নতুন পোশাক উপহার হিসেবে তুলে দিয়েছিলেন, জনপ্রিয় সমাজমধ‍্যম গ্রুপ আমারকার ভাষা আমারকার গর্ব-এর অন‍্যতম পরিচালক বিশ্বজিৎ পাল।

thebengalpost.in
বিবাহ বার্ষিকীতে মানুষের পাশে থাকার বার্তা ‘অরণ্য সুন্দরী’র পাল দম্পতির :

.
.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে