একদা মাও অধ্যুষিত প্রত্যন্ত জঙ্গলমহলের পারিবারিক অনুষ্ঠান থেকে দেওয়া হল সবুজায়নের বার্তা

Advertisement

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, শালবনী, ৫ জুলাই : একদা মাও অধ্যুষিত প্রত্যন্ত জঙ্গলমহলের একটি গ্রাম পাটাঝরিয়া (বলরামপুর)। বিকেল ৪ টের পর যে গ্রামের মানুষজনের বুক ঢিপঢিপ করত, হয়তোবা ছুটে এল গুলি-বোমার শব্দ, কিংবা এই বুঝি ডাক পড়ল কাল মিটিংয়ে যোগ দিতে যাওয়ার জন্য! সময় বদলেছে, বদলেছে পরিস্থিতিও। বদলে গেছেন জঙ্গলমহলের মানুষও; শিক্ষায়, দীক্ষায়, চেতনায়! তাঁরা এখন বৃহত্তর সমাজের কথা ভাবছেন। তাই, পরিবেশের কথা ভেবে, মানব সমাজের আশু প্রয়োজনীয়তার কথা ভেবে, তাঁরা অরণ্যের মাঝে থেকেও, বৃক্ষ রোপনের বার্তা দিলেন, বৃক্ষ ছেদনের নয়। গ্রামের উৎসাহী যুবক তথা অন্যতম সমাজকর্মী ভবতোষ মাহাত’র আবেদনে সাড়া দিয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলেন, পিড়াকাটার বনাঞ্চল আধিকারিক (রেঞ্জ অফিসার) পাপন মোহান্ত।

গ্রামবাসী ও পরিবার-পরিজনদের আবেগ, উৎসাহ ও সহযোগিতায় পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার শালবনী ব্লকের পাটাঝরিয়া গ্রামের বাপি মাহাত এবং উর্মিলা মাহাত’র বিবাহ-পরবর্তী প্রীতিভোজের অনুষ্ঠান উপলক্ষে, শনিবার রাতে আমন্ত্রিত অতিথিদের হাতে তুলে দেওয়া হল একটি করে সজীব চারা গাছ।সবুজায়নের বার্তা দিতেই এই উদ্যোগ বলে জানিয়েছেন, নববিবাহিত দম্পতি। পরিবার ও গ্রামের পক্ষ থেকে, এই আয়োজনের অন্যতম কান্ডারী ভবতোষ মাহাত বললেন, “বর্তমান সময়ে বৃক্ষরোপণের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেই এই আয়োজন। আমাদের সহায়তা করেছেন পিড়াকাটার রেঞ্জ অফিসার পাপন মোহান্ত।”

thebengalpost.in
প্রীতিভোজে চারা গাছ বিতরণ :