জেলা প্রশাসন আয়োজিত হুল দিবসের অনুষ্ঠানেও করোনা বার্তা, পালন করল ‘জঙ্গলমহল উদ্যোগ’ও

দ্য বেঙ্গল পোস্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক, মেদিনীপুর, ৩০ জুন : পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা প্রশাসনের আদিবাসী উন্নয়ন বিভাগের উদ্যোগে, জেলার কেন্দ্রীয় হুল দিবসের অনুষ্ঠান হল পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পরিষদের প্রেক্ষাগৃহ প্রদ্যোৎ স্মৃতি সদনে। মঙ্গলবার দুপুরে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানের সূচনা হয়, সিধু কানুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান ও প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে। দিনটির গুরুত্ব ও তাৎপর্য নিয়ে বক্তব্য রাখেন মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র, জেলাশাসক ডঃ রশ্মি কমল, পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার, বিধায়ক পরেশ মুর্মু, জেলা পরিষদের সহ-সভাধিপতি অজিত মাইতি, কর্মাধ্যক্ষ মামনি মান্ডি প্রমুখ।

দ্য বেঙ্গল পোস্ট
হুল দিবসের আয়োজিত অনুষ্ঠানে মঞ্চে শিল্পীদের মুখেও মাস্ক:

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, জেলা পরিষদের সভাধিপতি উত্তরা সিং হাজরা, বিধায়ক দীনেন রায়, প্রদ্যোত ঘোষ, কর্মাধ্যক্ষ শ্যামপদ পাত্র, নির্মল ঘোষ, শৈবাল গিরি, অম্যূল্য মাইতি, রমাপ্রসাদ গিরি, এডিএম প্রতিমা দাস সহ অন্যান্য আধিকারিক ও জনপ্রতিনিধি বৃন্দ। অনুষ্ঠানে শহীদদের শ্রদ্ধা জানিয়ে সঙ্গীত পরিবেশন করেন পানমণি বেসরা। সাঁওতাল বিদ্রোহের উপর আধারিত একটি মনোগ্রাহী নৃত্য নাট্য পরিবেশন করে টীম “তালম”। আদিবাসী উন্নয়ন বিভাগের আধিকারিক সুরজিত পালের সহযোগিতায়, গোটা অনুষ্ঠানটি সুচারুভাবে সঞ্চলনা করেন জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি আধিকারিক অনন্যা মজুমদার। মেদিনীপুর আর্টিস্ট ফোরামের তত্ত্বাবধানে তৈরি মঞ্চে সজ্জাও ছিল চোখে পড়ার মতো। সর্বোপরি উল্লেখযোগ্য যে, মঞ্চে উপস্থিত অতিথিবৃন্দ থেকে শুরু করে অনুষ্ঠান পরিবেশন করা শিল্পী বৃন্দ, প্রত্যেকেই করোনা সচেতনতার বার্তা দিতে মুখে মাস্ক বা ফেস কভার ব্যবহার করেছেন। জেলার তথ্য ও সংস্কৃতি আধিকারিক অনন্যা মজুমদার জানিয়েছেন, “করোনা আবহে অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়েও করোনা সচেতনতার বার্তা দেওয়ার প্রয়োজন মনে করেই শিল্পীরাও মাস্ক ব্যবহার করেছেন।”

দ্য বেঙ্গল পোস্ট
হুল দিবসে আয়োজিত অনুষ্ঠান :

অন্যদিকে, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন জঙ্গল মহল উদ্যোগের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা শাখার উদ্যোগে মেদিনীপুর শহরের উপকণ্ঠে কেরানীচটিতে পালিত হল, হুল দিবস। এদিন সকালে কেরানীচটিতে অবস্থিত সিধু, কানুর মূর্তিতে সংগঠনের পক্ষ থেকে মাল্যদান করা হয়। দিনটির গুরুত্ব সম্পর্কে সংক্ষেপে আলোচনা করেন শিক্ষক সুদীপ কুমার খাঁড়া। উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের জেলা সম্পাদক সুব্রত মহাপাত্র, পরিমল মাহাত, মণিকাঞ্চন রায়, নরসিংহ দাস, রীতা বেরা, ইন্দ্রদীপ সিনহা, ফাকরুদ্দিন মল্লিক, রাজেশ বেরা প্রমুখ। উল্লেখ্য ১৮৫৫ সালের ৩০ শে জুন ঔপনিবেশিক ভারতে বৃটিশ সাম্রাজ্যবাদর বিরুদ্ধে এবং জমিদারি ও মহাজনী শোষনের বিরুদ্ধে সিধু, কানু, চাঁদ, ভৈরব, ডমন মাঝি, কালো প্রামানিক দের নেতৃত্বে “হুল” বা সাঁওতাল বিদ্রোহের সূচনা হয়েছিল।