আমফান ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা নিয়ে এবার কারচুপির অভিযোগ উঠল বিজেপি’র বিরুদ্ধে, সদুত্তর নেই অভিযুক্তদের কাছে

Advertisement

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদক, শালবনী, ৩০ জুন : শালবনী ব্লকের বিজেপি পরিচালিত ৬ নং ভীমপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান লক্ষ্ণীমণি হাঁসদা এবং উপ-প্রধান বিমান মাহাত’র বিরুদ্ধে আমফান ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা নিয়ে কারচুপির অভিযোগ এনে সোমবার শালবনীর বিডিও’র কাছে স্মারকলিপি জমা দেওয়া হল, তৃণমূলের তরফ থেকে। অভিযোগ যে, প্রধান লক্ষ্মীমণি হাঁসদা তাঁর শ্বশুর সতীশ হাঁসদা সহ বিভিন্ন আত্মীয় স্বজনের নাম নথিভুক্ত করেছেন এই তালিকায় এবং উপ-প্রধান বিমান মাহাত তাঁর বাবা বলরাম মাহাত সহ একাধিক জনের নাম নথিভুক্ত করেছেন, আমফান ঝড়ে যাদের ন্যূনতম ক্ষতি হয়নি! কিন্তু, যে সমস্ত গ্রামবাসীর প্রকৃত ক্ষতি হয়েছে, বিজেপি করেন না বলে, তাঁদের নাম ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকায় তোলা হয়নি; এমনই অভিযোগ এই এই গ্রাম পঞ্চায়েতের বিরোধী আসনে থাকা তৃণমূলের।

thebengalpost.in
অভিযোগ পত্র :

তৃণমূলের শালবনী ব্লকের সহ-সভাপতি তথা প্রাক্তন জেলা পরিষদ সদস্য সনৎ মাহাত’র অভিযোগ, “বোর্ড গঠনের পর থেকেই নানা দুর্নীতি ও স্বজন পোষণের অভিযোগ প্রধান, উপ-প্রধান সহ পঞ্চায়েত সদস্যদের বিরুদ্ধে। এবার গ্রামবাসীরা মিলিতভাবে অভিযোগ করছেন, বিজেপির প্রধান, উপ-প্রধান সহ গ্রাম পঞ্চায়েতের বিভিন্ন সদস্যরা ক্ষতিপূরণের তালিকাতে নিজেদের এবং নিজেদের আত্মীয়দের নাম নথিভুক্ত করেছেন। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের নাম তালিকাতে নেই। তাই, আগেও আমরা ডেপুটেশন দিয়েছি। জেলাশাসক ও জেলা সভাধিপতির কাছেও সেই কপি পাঠানো হয়েছে। এদিন পুনরায় বিডিও’র কাছে গ্রামের মানুষের পক্ষ থেকে একটা মাস পিটিশন জমা দেওয়া হল।” এই বিষয়ে যে গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে অভিযোগ, সেই লক্ষ্মীমণি হাঁসদা’কে ফোন করা হলেও, তিনি বিষয়টি এড়িয়ে গেছেন। তবে, বিজেপি’র জেলা নেতৃত্ব অভিযোগ অস্বীকার করেছে। অভিযোগ খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন, শালবনীর বিডিও সঞ্জয় মালাকার।

Advertisement