দূষণ সৃষ্টিকারী ইঞ্জিন রিক্সা রেল শহর থেকে জেলা সদরে দেদার ছুটছে, অভিযোগ যানজট নিয়েও, উদাসীন প্রশাসন

Advertisement

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদক, খড়্গপুর ও মেদিনীপুর, ২৯ জুন : শহরের রাস্তার উপর বা ব্যস্ত রাস্তার উপর দূষণ সৃষ্টিকারী ইঞ্জিন রিক্সা চালানো নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এইসমস্ত, ইঞ্জিন রিক্সা গুলির কোনো অনুমতিও নেই। তা সত্বেও, দেদার ছুটছে ব্যস্ততম রাস্তার উপর দিয়ে। কখনো মালপত্র নিয়ে, কখনো আবার যাত্রী নিয়ে। সোমবার সকালে দেখা গেল, খড়্গপুরের চৌরঙ্গী থেকে ইন্দা রাস্তার উপর দিয়ে, একাধিক যাত্রী নিয়ে চলছে ইঞ্জিন রিক্সা। এভাবে প্রায় প্রতিদিনই, মেদিনীপুর, খড়্গপুর প্রভৃতি শহরে চলতে দেখা যায় নিষিদ্ধ হয়ে যাওয়া ইঞ্জিন রিক্সা। ট্রাফিক পুলিশ সব দেখেও দেখেনা! আর প্রশাসনও এই বিষয়ে উদাসীন, অভিযোগ সচেতন শহরবাসীর। একই অভিযোগ, জেলা সদর মেদিনীপুর শহরেও। মাস ছয়েক আগে, এই নিয়ে বেঙ্গল পোস্টের প্রতিবেদনে বিস্তারিত ভাবে তুলে ধরা হয়েছিল, পৌরপ্রশাসন থেকে পরিবহন দপ্তর (আর.টি.ও) সকলেই স্বীকার করছেন, শহরের রাস্তায় ইঞ্জিন রিক্সা চালানো নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে, উপযুক্ত পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে পারস্পরিক অঙ্গুলি নির্দেশ করেই দায় সারছেন সকলে।
এই ধরনের ইঞ্জিন রিক্সাগুলি চলে কাটা তেল বা বাতিল তেলের মাধ্যমে। প্রচন্ড দূষণ বা ধোঁয়া সৃষ্টিকারী এইসব গাড়ি অবিলম্বে বন্ধ হওয়া উচিৎ বলে দাবি জানিয়েছেন পরিবেশ প্রেমীরাও। সর্বোপরি, এই সব গাড়ি বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে তৈরিও হয়না। ফলে, যেকোনো মুহূর্তে দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে। তা সত্বেও উদাসীন সব মহলই।

দ্য বেঙ্গল পোস্ট
যানজট খড়্গপুরের ইন্দা লোকাল থানা মোড়ে :

অপরদিকে, খড়্গপুর শহরের ইন্দামোড়ে (লোকাল থানার ঠিক আগেই), মেন রাস্তার ধারে একটি পেট্রোল পাম্প আছে, সেখানে পেট্রোল নিতে ঢোকে ছোট বড় গাড়ি কিংবা ট্রাক সহ সবকিছুই। তার উপরে এই জায়গার রাস্তাও সঙ্কীর্ণ। সবমিলিয়ে এই রাস্তার উপর প্রতিদিনই যানজট বা জ্যাম লেগে আছে বলে অভিযোগ নিত্যযাত্রীদের।সোমবার দুপুরেও দেখা গেল এক ভয়ঙ্কর যানজটের ছবি।কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশকে যথেষ্ট বেগ পেতে হল, এই যানজট ছাড়াতে। একই অবস্থা, মেদিনীপুর শহরের স্কুলবাজার এলাকাতেও। সঙ্কীর্ণ রাস্তায় বিভিন্ন গাড়ি ঘোড়া এসে নিত্যদিন তৈরি হচ্ছে যানজট। এখানে অবশ্য ট্রাফিক বা সিভিক পুলিশ থাকেনা। এই বিষয়েও প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চেয়েছেন, শহরবাসীরা।

Advertisement