অযত্নে পড়ে থাকা চৌরঙ্গীর মোড়ের বিবেকানন্দ মূর্তি ও সৌন্দর্য ক্ষেত্র পরিস্কারের উদ্যোগ নিল এমকেডিএ

Advertisement

বিশেষ প্রতিবেদন, মণিরাজ ঘোষ, ২২ জুন : মেদিনীপুর ও খড়্গপুর শহরে ঢোকার মুখে, জাতীয় সড়কের উপর অবস্থিত ‘চৌরঙ্গীর মোড়’ এক গুরুত্বপূর্ণ এলাকা। একদিক দিয়ে ঝাড়গ্রাম থেকে শুরু করে মুম্বাই অন্যদিক দিয়ে পূর্ব মেদিনীপুর, ওড়িশা কিংবা কলকাতা যাওয়ার সংযোগস্থল স্বরূপ ঐতিহ্যমন্ডিত এই চৌরঙ্গী’র মোড়ের গুরুত্ব বিবেচনা করে এর সৌন্দর্যায়নের দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছিল, এমকেডিএ’র হাতে। বছর দুয়েক আগে এই মোড়ে বিবেকানন্দের মূর্তি বসে এবং সেটিকে ঘিরে সৌন্দর্যায়ন হয়েছিল কয়েক লক্ষ টাকা খরচে। রাজ্য সরকারের মন্ত্রীর হাত দিয়ে তা উদ্বোধনও হয়েছিল সাড়ম্বরে। কিন্তু, বর্তমানে তা অবহেলা ও অযত্নে আগাছায় পূর্ণ এক ঝোপ-জঙ্গলে পরিণত হয়েছে। সঙ্গে আবার বিষাক্ত পার্থেনিয়ামের বাড়বাড়ন্ত!

দ্য বেঙ্গল পোস্ট
চৌরঙ্গী’র মোড়ের সেই সৌন্দর্যায়ন এখন ঝোপ-জঙ্গলে পূর্ণ :

দুই শহরে ঢোকার মুখে এই গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় নির্মিত এই সৌন্দর্য ক্ষেত্র গত দু-এক বছরে মানুষকে এক দৃষ্টিনন্দন সৌন্দর্য উপলব্ধি করাতো, তা অস্বীকার করার উপায় নেই! সেই দৃষ্টিসুখ’ই এখন দৃষ্টকাতরতায় পরিণত হয়েছে। মনীষী স্বামী বিবেকানন্দের মূর্তি ঘিরে থাকা এই সৌন্দর্যক্ষেত্র এখন রীতিমতো ঝোপ-জঙ্গলে পরিণত হয়েছে। প্রবেশ করার গেট থেকে শুরু করে বসার জায়গাগুলো লতাপাতায় ঢেকে গেছে। দীর্ঘদিন ধরে দুই শহরের সচেতন মানুষ এবং নিত্যযাত্রীরা দাবি তুলছিলেন, অবিলম্বে তা পরিষ্কার করার বিষয়ে।
দ্য বেঙ্গল পোস্ট
উদ্যোগ নেওয়া হল পরিস্কার করার বিষয়ে:

এই বিষয়ে, দায়িত্বপ্রাপ্ত এমকেডিএ (মিডনাপুর খড়্গপুর ডেভলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন)’র চেয়ারম্যান তথা মেদিনীপুরের বিধায়ক মৃগেন্দ্রনাথ মাইতি’র দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছিল। রবিবার এই বিষয়ে বিধায়ক ও এমকেডিএ চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি তথা মেদিনীপুর পৌরসভার প্রাক্তন কাউন্সিলর নির্মাল্য চক্রবর্তী (তৃণমূল যুব কংগ্রেসের রাজ্য মনিটরিং কমিটির সদস্য) জানালেন, “নিঃসন্দেহে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ সংযোগস্থল। সেজন্যই এমকেডিএ দায়িত্ব নিয়ে এখানে স্বামী বিবেকানন্দের মূর্তি স্থাপন করেছিল এবং সৌন্দর্যায়ন করেছিল। বর্ষার জন্য বর্তমানে ঝোপজঙ্গল তৈরি হয়েছে, বিষয়টি আমরা চেয়ারম্যানের নজরে আনতেই, উনি ১০-১৫ দিনের মধ্যে ওই এলাকা পরিষ্কার করার নির্দেশ দিয়েছেন। এমকেডিএ’র চেয়ারম্যান হিসাবে উনি সদা তৎপর।”
শুনে নিন নির্মাল্য চক্রবর্তী’র বক্তব্য :