‘বিশ্ব মহাসাগর দিবস’ উপলক্ষে তাজপুর ও মান্দারমণির সমুদ্রতট পরিষ্কার করল মিডনাপুর ডট ইনের সদস্যরা

Advertisement

বিশেষ প্রতিবেদন, মণিরাজ ঘোষ, ৮ জুন : ১৯৯২ সালের জুন মাসে ব্রাজিলের রিও ডি জেনেইরো শহরে অনুষ্ঠিত “বিশ্ব বসুন্ধরা সম্মলন” (Earth Summit – UN Conference on Environment and Development ) সম্মেলনে মূলত কানাডার দুটি সংস্থা  (ICOD ও OIC) ‘বিশ্ব মহাসাগর দিবস’ পালনের প্রস্তাব দেয়। ২০০৮ সালের পর থেকে ৮ জুন দিনটিকে জাতিসংঘ আনুষ্ঠানিকভাবে “বিশ্ব মহাসাগর দিবস” (World Oceans Day) হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

Advertisement
দ্য বেঙ্গল পোস্ট
সমুদ্রতট পরিষ্কার করল মিডনাপুর ডট ইন :

সোমবার (৮ জুন) এই বিশেষ দিন উপলক্ষে, অবিভক্ত মেদিনীপুর জেলার স্বনামধন্য স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘মিডনাপুর ডট ইন‘ এর সদস্যরা মান্দারমনি ও তাজপুর সমুদ্রতটের কিছু অংশ পরিষ্কার করল। এই কর্মসূচি উপলক্ষে সংস্থার প্রধান কান্ডারী অরিন্দম ভৌমিক বললেন, “পশ্চিমবঙ্গের মোট সমুদ্র উপকূলের (২১০ কিমি) অধিকাংশই আমাদের অবিভক্ত মেদিনীপুর জেলায় অবস্থিত। তাই দায়িত্বটাও আমাদেরই বেশি। আজ বিশ্ব মহাসাগর দিবস উপলক্ষে মিডনাপুর ডট ইন (midnapore.in) – এর সদস্যরা তাজপুর ও মন্দারমণি সমুদ্র সৈকতের কিছুটা অংশ পরিষ্কার করল। করোনা’র কারণে পর্যটক না আসায় এবং আমফান ঝড়ের ফলে সমুদ্র সৈকতগুলি আগের তুলনায় অনেকটাই পরিষ্কার হয়ে গেছে এবং জন্ম নিয়েছে অনেক গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ যা বালিয়াড়ি রক্ষা করে। ছবিতে যে আবর্জনাগুলি দেখছেন এগুলি মূলত জেলেদের জালে সমুদ্র থেকে উঠে এসেছে। এই আবর্জনাগুলি এবং মৃত সামুদ্রিক প্রাণীগুলি পরিষ্কার করলেন মিডনাপুর ডট ইনের সদস্যরা। সমস্তকিছুর দায়িত্বে ছিলেন রামনগর অঞ্চলের সম্পাদক জ্যোতির্ময় খাটুয়া ও এগরা অঞ্চলের সম্পাদক রাজকুমার দাস।” অবিভক্ত মেদিনীপুর জেলার পরিবেশ আন্দোলনের অন্যতম সৈনিক অরিন্দম বাবু এও জানালেন, “যে ব্যাগগুলি আমরা ময়লা তোলার জন্য ব্যবহার করেছি, সেগুলি ছবিতে পলিথিনের ব্যাগের মত দেখতে হলেও ওগুলি পলিথিনের নয়, পরিবেশবান্ধব উপাদান দিয়ে তৈরি।”