শালবনীতেই হবে করোনার চিকিৎসা, পশ্চিম মেদিনীপুরের লেভেল ৪ হাসপাতাল হচ্ছে শালবনী সুপার স্পেশালিটি, কাজ চলছে যুদ্ধকালীন তৎপরতায়

Advertisement

মণিরাজ ঘোষ, মেদিনীপুর, ৭ জুন : রাজ্য সরকারের কাছ থেকে শালবনী সুপার স্পেশালিটি হসপিটাল’টি অধিগ্রহণ করেছিল জিন্দাল কর্তৃপক্ষ। করোনা আবহে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে পুনরায় এই হসপিটালটি রাজ্য সরকার অধিগ্রহণ করে, করোনা লেভেল ৩-৪ হাসপাতাল হিসেবে গড়ে তুলতে চলেছে। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা প্রশাসনের তৎপরতায় আগামী সপ্তাহ থেকেই পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার একমাত্র করোনা চিকিৎসাকেন্দ্র (হাসপাতাল) হিসেবে উন্মুক্ত হতে চলেছে শালবনী সুপার স্পেশালিটি হসপিটাল।

Advertisement
দ্য বেঙ্গল পোস্ট
শালবনীতে হবে করোনা চিকিৎসা :

এর আগে, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় করোনা লেভেল – ১ (আয়ুশ) এবং লেভেল – ২ (গ্লোকাল) হাসপাতাল থাকলেও, করোনা চিকিৎসার জন্য পাঠানো হতো, পূর্ব মেদিনীপুরের বড়মা হাসপাতালে। শুধুমাত্র উপসর্গ থাকাদের বা সন্দেহভাজনদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হত যথাক্রমে, লেভেল -১ ও লেভেল – ২ তে। কিন্তু, প্রতিদিন যেভাবে সংক্রমণ হু হু করে বাড়ছে, রাজ্য সরকার তাই পশ্চিম মেদিনীপুর জেলাতেও করোনা হাসপাতাল লেভেল ৩-৪ গড়ে তোলার উদ্যোগ গ্রহণ করে। গত ২ জুন নবান্ন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলা প্রশাসনকে উদ্দেশ্য করে বলেছিলেন, “শালবনী হাসপাতালটা আমরা নিচ্ছি করোনা চিকিৎসার জন্য।” এরপরই জেলাশাসক ডঃ রশ্মি কমল এর নেতৃত্বে ওইদিন বিকেলেই হাসপাতাল পরিদর্শন করে, কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দেওয়া হয় বিষয়টি। আপাতত যুদ্ধকালীন তৎপরতায় কাজ চলছে, শালবনী সুপার স্পেশালিটিতে। ১৫০ টি বেডের লেভেল ৩-৪ হাসপাতাল হবে এটি, তবে প্রাথমিক ভাবে ৫০ টি বেড নিয়ে কাজ শুরু করবে এই হাসপাতাল। ভর্তি থাকা প্রায় ৩৫ জন রোগীকে ইতিমধ্যে স্থানান্তরিক করা হয়েছে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। গতকাল থেকে, আউটডোর পরিষেবাও বন্ধ করা হয়েছে। সূত্রের খবর অনুযায়ী, আজ সকাল থেকে এমার্জেন্সি রোগীদেরও রেফার করা হচ্ছে মেদিনীপুর মেডিক্যালে।