মহাসঙ্কটের এই সময়ে রক্তের আকাল মেটাতে মহতী রক্তদান শিবিরের আয়োজন করলো “সূর্যাস্তের হাট”

Advertisement

সায়ক পন্ডা, মেদিনীপুর, ৩১ মে : অভিনব ভাবে রক্তদান শিবির আয়োজিত হলো মেদিনীপুর শহরে । স্বয়ং মহকুমাশাসক ও পৌর-প্রশাসক দীননারায়ণ ঘোষ এর পূর্ণাঙ্গ সহযোগিতায় আয়োজিত এই রক্তদান শিবিরে মোট চল্লিশ জন রক্তদাতা স্বেচ্ছায় রক্ত দিলেন। মহতী এই শিবিরে উপস্থিত ছিলেন, জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ গিরিশ চন্দ্র বেরা, অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার অম্লান কুসুম ঘোষ , বিদ্যাসাগর শিক্ষক শিখন মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ মনোরঞ্জন ভৌমিক ও অধ্যাপক বিশ্বজিত সেন, ওয়েস্ট বেঙ্গল ভোলেণ্টারি ব্লাড ডোনার ফোরাম (পশ্চিম মেদিনীপুর ইউনিটর অসীম ধর ও জয়ন্ত মণ্ডল সহ পৌরসভার আধিকারিক ও অন্যান্য শুভানুধ্যায়ীরা।

Advertisement
দ্য বেঙ্গল পোস্ট
সূর্যাস্তের হাট এর রক্তদান শিবির:

মেদিনীপুর ব্লাড ব্যাঙ্ক এই শিবিরের রক্ত সংগ্রহ করে। শহরের একপ্রান্তে গড়ে ওঠা সূর্যাস্তের হাটে সামিল হওয়া মানুষজনের উদ্যোগে গতকাল আয়োজিত হয় এই শিবির। শুধু তাই নয়, রক্তদাতাদের হাতে একটা করে ফলের গাছ তুলে দেন  শিবিরের তথা সূর্যাস্তের মূল কারিগর সমাজসেবী ও শিক্ষক মনিকাঞ্চন রায় , সুশান্ত ঘোষ , দেবব্রত পাত্র প্রমুখরা। মনিকাঞ্চন বাবুর কথায়, “বর্তমান সমাজে করোনা ব্যাধি থেকে যেমন বাঁচতে আমরা সকলকে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে ক্যাম্পাসে ঢোকাই , তেমনি একটা বার্তা দিতে চেয়েছি এই সমাজকে বাঁচাতে রক্তের প্রয়োজন তেমনি পরিবেশ কে বাঁচাতে গাছ অপরিহার্য। তাই সকলের হাতে একটা করে চারা গাছ দিয়েছি।”

৩০ মে আয়োজিত এই শিবিরের মুখ্য আয়োজক সমাজসেবী ফাকরুদ্দিন মল্লিক ও দেবব্রত পাত্রের কথায় “আমরা সকলেই এই কঠিন পরিস্থিতে রক্তদান শিবির করে রক্তের সঙ্কট কিছুটা কমাতে চেষ্টা করেছি। এই মুহূর্তে রক্তের আকাল দূর করতে সকলের এগিয়ে আশা প্রয়োজন এই কথা সূর্যাস্তের কিছু মানুষকে আমরা প্রস্তাব দিই এবং তাতে সবাই উদ্যোগী হয়ে একসাথে এই প্রোগ্রাম করার ভাবনা আশে আমাদের । আর তাতে পৌরসভা ও পুলিশ প্রশাসন সার্বিক সহযোগীতা করেন।” এই প্রসঙ্গে মহকুমা শাসক বলেন যে “সূর্যাস্তের এই প্রস্তাব আমার কাছে আশার সাথে সাথে আমি সম্মতি দিই এবং সার্বিক মাত্রায় স্বাস্থ্য বিধি মেনে যাতে করা যায় এই শিবির সে বিষয়ে জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক গিরিশ বাবুর পরামর্শ মেনে এগোতে বলি এবং আমার পক্ষে যতটা সহযোগিতা করা সম্ভব করেছি। সকলের উদ্যগে এই শিবির সফল হয়েছে। সামজিক দূরত্ব রেখে এতো জনের রক্ত নেওয়া সম্ভব হয়েছে সকল উপস্থিত মানুষের সচেতনতায়। ধন্যবাদ জানাই সূর্যাস্ত কে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে যারা তাদের কুর্ণীশ জানাই , বিশেষ করে মনিকাঞ্চন , সুশান্ত সহ তার সকল সূর্যাস্তের অনুগামীদের।”

এই শিবিরে বিভিন্ন স্তরের মানুষ এর সাথে কিছু সাংবাদিক বন্ধুও রক্তদান করেন। এই শিবিরে কয়েকটা পর্যায়ে রক্ত নেওয়া হয়। এই শিবিরে পৌর সভার পক্ষ থেকে সকল কে মাস্ক, স্যানিটাইজার, টিফিনের ব্যবস্থাও করা হয় । সূর্যাস্তের পক্ষে  রক্তদাতাদের হাতে সার্টিফিকেট ও স্মারক তুলে দেওয়া হয় । জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক গিরিশ চন্দ্র বেরা বলেন “খুবই সুন্দর ভাবে আয়োজিত হয়েছে এই শিবির। এই পরিস্থিতিতে এরম ব্যবস্থাপনা র মাধ্যমে রক্তদান শিবির করা উচিত।” উদ্যোক্তা দের শুভকামনা জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অম্লান কুসুম ঘোষ।