পুজোর মুখে আরো উন্নত শালবনী করোনা হাসপাতাল, ৪০ টি এইচডিইউ শয্যা ছাড়াও একাধিক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, মৃতদেহ সংরক্ষণের আধুনিক ব্যবস্থা

For Perfect and Correctest Medical treatment at Salboni Corona Hospital, many more initiatives have been taken by the Administration

THEBENGALPOST.IN
ত্রুটিমুক্ত স্বাস্থ্য পরিষেবা প্রদানে বদ্ধপরিকর শালবনী‌ করোনা হাসপাতাল :
.

মণিরাজ ঘোষ, শালবনী (পশ্চিম মেদিনীপুর), ১১ অক্টোবর : পুজোর পর রাজ্যে বাড়তে পারে করোনা সংক্রমণ! আশঙ্কা করা হচ্ছে খোদ রাজ্য প্রশাসনের তরফে। গতকাল (১১ অক্টোবর), রাজ্যে সর্বাধিক (৩৫৯১/এখনো পর্যন্ত একদিনে সর্বাধিক) করোনা সংক্রমণের পর সেই আশঙ্কাতেই যেন সীলমোহর পড়তে শুরু করেছে। সবেমাত্র শুরু হয়েছে পুজোর বাজার, আর এর মধ্যেই প্রতিদিন করোনার গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী (৩৫২৬, ৩৫৭৩, ৩৫৯১)! গতকাল (১১ অক্টোবর), একটি ভিডিও কনফারেন্সে মুখ্য সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় এবং স্বাস্থ্য সচিব নারায়ণ স্বরূপ নিগম, প্রতিটি জেলার ডিএম বা জেলাশাসক দের পুজোর সময়ে সতর্কতা-বিধি মেনে পুজো পরিচালনা করার নির্দেশ দেওয়া থেকে শুরু করে, করোনা মোকাবিলার আগাম প্রস্তুতি গ্রহণ করার পরামর্শ দান করেছেন। এই প্রসঙ্গেই পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলাশাসক ডঃ রশ্মি কমল জানিয়েছেন, “পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় সমস্ত ধরনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ বা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। করোনা চিকিৎসা পরিষেবা’র দিক দিয়ে এই মুহূর্তে জেলা একেবারে সঠিক জায়গায় অবস্থান করছে। লেভেল ফোর শালবনীতে উন্নত মানের পরিষেবা দেওয়া হচ্ছে। বাড়ানো হয়েছে এইচডিইউ শয্যা, চিকিৎসক ও নার্সদের সংখ্যা। এছাড়াও, জেলার সেফ হোম গুলিতেও পর্যাপ্ত করোনা শয্যা আছে।” এই প্রসঙ্গে, জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ নিমাই চন্দ্র মন্ডল জানিয়েছেন, “গত এক সপ্তাহের মধ্যে শালবনীতে বেশ কয়েকজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক যোগ দিয়েছেন। পরিষেবার দিক দিয়ে আর কোন সমস্যা নেই।”

THEBENGALPOST.IN
শালবনী করোনা হাসপাতালের পরিষেবা নিয়ে তৎপরতা (ফাইল ও প্রতীকী ছবি) :

.

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, শালবনী করোনা হাসপাতালে, গত ২১ সেপ্টেম্বর থেকে ২০ টি এইচ ডি ইউ (HDU- High Dependency Unit) শয্যা বিশিষ্ট একটি ইউনিট সফলভাবে শুরু করা হয়েছিল। এছাড়াও, ওই সময় থেকেই চলছে ডায়ালিসিস ইউনিট (Dialysis Unit)ও। এছাড়াও, ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে ২ অক্টোবর পর্যন্ত, এম আর বাঙ্গুরের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দল, হ্যান্ড হোল্ডিং সাপোর্ট বা হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ প্রদান করে গেছেন। বাড়ানো হয়েছে আরো ২০ টি HDU শয্যা। এদিকে, শালবনীতে সবথেকে বড় যে সমস্যাটি ছিলো, উপযুক্ত সংখ্যক চিকিৎসক ও নার্সের অভাব; সেটিও দূর করা হয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের উদ্যোগে। জেলা প্রশাসন ও জেলা স্বাস্থ্য দফতরের তৎপরতায়, রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে শালবনীতে উপযুক্ত সংখ্যক প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত স্টাফ নার্স পাঠানো হয়েছে। ৩০ থেকে বেড়ে শালবনীতে এখন স্টাফ নার্সের সংখ্যা ৭৯। অপরদিকে, পাঠানো হয়েছে ৫ জন নতুন এম.ডি চিকিৎসক। এর মধ্যে, ৩ জন অ্যানাসথেটিস্ট (Anaesthetist) বা ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিট বিশেষজ্ঞ (CCU Specialist) এবং ২ জন জেনারেল ফিজিশিয়ান (General Physician), যার মধ্যে একজন চেস্ট মেডিসিনের চিকিৎসক। এছাড়াও, আগের ১ জন সহ এই মুহূর্তে শালবনীতে ৬ জন এম.ডি সহ মোট ১৬ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক পূর্ণ সময়ের জন্য বহাল রয়েছেন। এছাড়াও আছেন, মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদল। জেলার উপ মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ সৌম্যশঙ্কর সারেঙ্গী জানিয়েছেন, “শালবনীতে সম্প্রতি ৫ জন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক যোগ দিয়েছেন, আছেন পর্যাপ্ত স্টাফ নার্স বা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত স্বাস্থ্যকর্মী। এছাড়াও, ২৪ ঘন্টার জন্য হেলপ্লাইন ও রোগী সহায়তা কেন্দ্র পরিষেবা দিয়ে চলেছে। ৬ জন করোনা যোদ্ধা নিয়ম করে নিজেদের দায়িত্ব পালন করছেন। আরো ২০ টি এইচ ডি ইউ শয্যা বাড়ানো হয়েছে। এই মুহূর্তে সর্বক্ষণের জন্য শালবনীতে সঠিক এবং উন্নত চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া হচ্ছে। এজন্য আমরা রাজ্য প্রশাসন ও জেলা প্রশাসন ছাড়াও শালবনীর সুপার সহ চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী দলকে অকুণ্ঠ ধন্যবাদ জানাই।” জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর ও শালবনী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সূত্রে এও জানা যায়, শালবনীতে মৃতদেহ সংরক্ষণের জন্য Mortuary Cooler বিশিষ্ট (মৃতদেহ সংরক্ষণের রেফ্রিজারেটর) বিশিষ্ট চার শয্যার পৃথক একটি চেম্বার বা কামরা করা হয়েছে, যাতে কোনভাবেই জীবাণু ছড়িয়ে না পড়ে এবং পরিজনেরা শেষ দেখার আগে পর্যন্ত মৃতদেহটি সঠিকভাবে সংরক্ষণ করে রাখা যায়। শালবনী করোনা হাসপাতালের বর্তমান সুপার ডাঃ নন্দন ব্যানার্জি জানিয়েছেন, “ত্রুটিমুক্ত পরিষেবা দেওয়ার জন্য শালবনী করোনা হাসপাতালের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন। ১৬ জন চিকিৎসকের মধ্যে একজন চিকিৎসক এই মুহূর্তে করোনা সংক্রমিত হয়ে চিকিৎসাধীন। তবে, বাকি ১৫ জন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা করোনা যুদ্ধে সামিল আছেন। ৪০ টি এইচডিইউ (HDU) এবং ১০ টি আইসিসিইউ (ICCU) শয্যা সহ উন্নত ও ত্রুটিমুক্ত পরিকাঠামোও বর্তমান। তৈরি করা হয়েছে, মৃতদেহ সংরক্ষণের জন্য পৃথক চেম্বার। এছাড়াও, রোগীর পরিজনদের সঙ্গে চিকিৎসাধীন ব্যক্তির যোগাযোগ গড়ে তোলার জন্য ২৪ ঘন্টার রোগী সহায়তা কেন্দ্র খোলা হয়েছে।”

THEBENGALPOST.IN
ত্রুটিমুক্ত স্বাস্থ্য পরিষেবা প্রদানে বদ্ধপরিকর শালবনী‌ করোনা হাসপাতাল :

.
.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে