“আমরা ভদ্রলোক, পাশের বাড়িতে উঁকিঝুঁকি মারিনা”, শুভেন্দু’র বাড়িতে পিকে’র পৌঁছে যাওয়া নিয়ে ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য দিলীপ ঘোষের

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, মেদিনীপুর, ১৩ নভেম্বর: মেদিনীপুরে রামনবমী উৎসব সমিতির বিজয়া সম্মিলনীতে আজ সম্পূর্ণ অন্য মেজাজে পাওয়া গেল সাংসদ দিলীপ ঘোষ’কে। গানের তালে তালে হাততালি দিলেন, শিল্পীদের নৃত্যে মুগ্ধ হয়ে নিজের মোবাইলে সেই দৃশ্য রেকর্ডিং করতেও দেখা গেল তাঁকে। নিজের ৫ মিনিটের বক্তব্যে রাজনৈতিক কথাও বললেন না এদিন। তবে, মঞ্চের নীচে এসে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন কয়েক মিনিটের জন্য। সেখানেই এক সাংবাদিক তাঁর কাছে জানতে চেয়েছিলেন, শুভেন্দু অধিকারী’র বাড়িতে পিকে বা প্রশান্ত কিশোরের যাওয়া প্রসঙ্গে তাঁর অভিব্যক্তি কি? প্রত্যুত্তরে মেদিনীপুরের সাংসদ দিলীপ ঘোষ বলেন, “ওটা ওদের বাড়ির সমস্যা। আমরা পাশের বাড়িতে উঁকিঝুঁকি মারিনা। আমরা ভদ্রলোক, নিজেদের বাড়ি নিয়েই ব্যস্ত থাকি!”

thebengalpost.in
অন্য মেজাজে দিলীপ ঘোষ :

.
.

পশ্চিম মেদিনীপুরের মেদিনীপুর শহরে অবস্থিত, বিদ্যাসাগর স্মৃতি মন্দির প্রেক্ষাগৃহে “রামনবমী উৎসব সমিতি”র বিজয়া সম্মিলনীতে প্রধান অতিথি রূপে আজ (১৩ নভেম্বর), নির্ধারিত সময়ের বেশ কিছুক্ষণ পরে, সন্ধ্যা ৮ টা নাগাদ উপস্থিত হয়েছিলেন সাংসদ দিলীপ ঘোষ। তাঁকে ঘিরে অনুগামীদের উৎসাহ ছিল চোখে পড়ার মতো। প্রবেশ পথে পুষ্পবৃষ্টি হল, সুসজ্জিত প্রমীলা বাহিনী’র পক্ষ থেকে। মঞ্চ থেকে দেওয়া হল জয়ধ্বনি। তবে, এদিনের অনুষ্ঠানে মাত্র আধঘন্টা উপস্থিত ছিলেন তিনি। সেই আধ ঘন্টার উপস্থিতিতেই সম্পূর্ণ অন্য মেজাজে পাওয়া গেল তাঁকে! গানের তালে তালে হাততালি দিয়ে অনুষ্ঠান উপভোগ করলেন তিনি। আর মঞ্চে তিনি একটিও রাজনৈতিক ‘শব্দ’ উচ্চারণ করেননি ! বরং, হিন্দুত্ব, শ্রীরামচন্দ্র, রামজন্মভূমি এবং ভারতমাতার জয়গান করলেন। সাড়ে আটটা নাগাদ তিনি পরবর্তী কর্মসূচির উদ্দেশ্যে রওনা দেন। যাওয়ার আগে, শুভেন্দু অধিকারী প্রসঙ্গে যে ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করে গেলেন, তা থেকে রাজনৈতিক মহলে ফের গুঞ্জন শুরু হয়ে গেল এবং এটুকু নিশ্চিত হওয়া গেল, বিজেপি’র সাথে এখনও পর্যন্ত শুভেন্দু অধিকারী’র প্রত্যক্ষ যোগাযোগ গড়ে ওঠেনি!

thebengalpost.in
মেদিনীপুর শহরে দিলীপ ঘোষ :

.
.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে