এখনই খুলছেনা স্কুল, মাধ্যমিক-উচ্চ মাধ্যমিকের সিলেবাস কমছে ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ, শিক্ষাবিদেরা দ্বিধাবিভক্ত

বিজ্ঞাপন

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, কলকাতা, ২৫ নভেম্বর: শেষ পর্যন্ত সিলেবাস কমিয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা নেওয়ার ঘোষণা করলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি বললেন, “প্রস্তাব এসেছিল, সিলেবাস ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ কমানোর বিষয়ে। সেই প্রস্তাব গৃহীত হল।” তিনি এও বলেন, মাধ্যমিক শিক্ষা পর্ষদ এবং উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, খুব তাড়াতাড়ি ওয়েবসাইটে তাঁরা সিলেবাস আপলোড করবেন। এদিকে এখনই খুলছেনা স্কুল, জানিয়ে দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। তবে, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে, উপাচার্যদের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

thebengalpost.in
শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় :

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অপরদিকে, মাধ্যমিক-উচ্চ মাধ্যমিকের সিলেবাস কমিয়ে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত শিক্ষাবিদেরা। রাজ্যের একটি অংশের শিক্ষাবিদেরা বলছেন, সিলেবাস কমানোর সিদ্ধান্ত সঠিক। একটা বছর ছাত্র-ছাত্রীদের নষ্ট করার চেয়ে সিলেবাস কমিয়ে পরীক্ষা নিলে ছাত্র-ছাত্রীদের সুবিধা হবে এবং একটা বছর পিছিয়েও পড়বে না। পরবর্তী সময়ে ভালোভাবে পড়াশোনা করে, এই ঘাটতি দূর করা সম্ভব! অপর অংশের শিক্ষাবিদেরা বলছেন, একেবারেই ভুল সিদ্ধান্ত! এই প্রজন্মের মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের, অনেকটা ‘পঙ্গু’ করে দেওয়া হল! এর ফলে, ভবিষ্যতের প্রতিযোগিতায় তারা অনেকটা পিছিয়ে যাবে। অর্ধেক জেনে, অর্ধেক শিখে কিভাবে তারা পরবর্তী সময়ে (কলেজ বা উঁচু ক্লাসে) পাল্লা দেবে। সেই সিলেবাসের সঙ্গে মানিয়ে নিতে অসুবিধায় পড়বে শিক্ষার্থীরা। এর থেকে শিক্ষাবর্ষ এক বছর পিছিয়ে দিলে, বয়স একটা বছর বাড়লেও, ‘শিক্ষা’ বা জ্ঞানার্জনের দিক দিয়ে তারা সমৃদ্ধ থাকবে। এর আগেও শিক্ষাবর্ষ পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে, শিক্ষাবর্ষ এক বছর পিছিয়ে গেলে, শিক্ষার্থীদের এমন কিছু ক্ষতি হবে না।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে