“অত্যাচার ততটাই করুন, একুশের পর যতটা সহ্য করতে পারবেন”, দলীয় কর্মীকে খুনের অভিযোগ করে মেদিনীপুর থেকে তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি বিজেপি নেতা তুষার মুখার্জীর

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ২৮ অক্টোবর: পশ্চিম মেদিনীপুরের দাঁতনের মোহনপুর থানার শিয়ালসাই গ্রামের সক্রিয় বিজেপি কর্মী বাচ্চু বেরা (বয়স আনুমানিক ৪৫)’র অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় একদিকে যেমন তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে, ঠিক তেমনই এই মৃত্যুকে ঘিরে জেলার রাজনীতি আরো একবার উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে! বিজেপি’র দলীয় সূত্রে জানা গেছে, দুর্গাপূজার নবমীর দিন (রবিবার, ২৫ অক্টোবর) রাত থেকে নিখোঁজ ছিলেন শিয়ালসাই গ্রামের বিজেপি বুথ সহ-সভাপতি বাচ্চু বেরা। সোমবার, বিজয়া দশমীর দিন (২৬ অক্টোবর) দুপুরে তার রক্তাক্ত মৃতদেহ একটি জঙ্গলে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়। মৃতদেহ ঘিরে বিজেপি কর্মীরা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে এবং দাবি করে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা বাচ্চু কে খুন করেছে। পরে পুলিশ মৃতদেহটি উদ্ধার করে। মঙ্গলবার বিকেলে, মৃতদেহটি মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজে ময়নাতদন্তের পর বিজেপির জেলা কার্যালয়ে (মেদিনীপুর শহরের সিপাইবাজারে) নিয়ে আসা হয় এবং তারপর পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়। জেলা বিজেপি কার্যালয়ে নিয়ে আসা হলে, বিজেপির জেলা ও রাজ্য নেতৃত্ব ফুল ও মালা দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। বিজেপির অভিযোগ, এই কর্মকর্তাকে তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা মেরে ঝুলিয়ে দিয়েছে। তাঁর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। পা ভেঙে দেওয়া হয়েছে। তৃণমূলের দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানানো হয়। বিজেপির জেলা সভাপতি শমিত দাস মন্তব্য করেন, এই মৃত্যুর জন্য মোহনপুর থানার আইসি এবং জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব পরোক্ষভাবে যুক্ত। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে তৃণমূল জেলা সভাপতি অজিত মাইতি বলেন, মৃত ব্যক্তি মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন। পারিবারিক কারণে আত্মহত্যা করেছেন।

thebengalpost.in
বিজেপি কর্মী বাচ্চু বেরা’র ঝুলন্ত মৃতদেহ :

.
.

এদিকে, মৃত বিজেপি কর্মী বাচ্চু বেরার মৃতদেহ মঙ্গলবার ময়নাতদন্তের পর মেদিনীপুরে বিজেপির জেলা কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয় সন্ধ্যা নাগাদ। সেখানে মৃত কর্মীর মরদেহে মাল্যদান করেন বিজেপির জেলা ও রাজ্য নেতৃত্ব। এরপর মরদেহ নিয়ে মোহনপুরে গ্রামের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন বিজেপি জেলা নেতৃত্ব। বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক তুষার মুখার্জী বলেন, “তৃণমূল গোটা বাংলায় খুন সন্ত্রাসের রাজনীতি করে নিজেদের ক্ষমতা কায়েম করার চেষ্টা করে যাচ্ছে। কিন্তু, এসবের জবাব ২১ শে’র নির্বাচনে পেয়ে যাবে।” তৃণমূলের উদ্দেশ্যে হুঁশিয়ারি দিয়ে তুষার বাবু বলেন, “অত্যাচার ততটাই করুন, যতটা সহ্য করতে পারবেন।” এদিকে, তৃণমূল জেলা সভাপতির মন্তব্য প্রসঙ্গে, বিজেপি’র রাজ্য সাধারণ সম্পাদক তুষার মুখার্জী এবং পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা সহ-সভাপতি অরূপ দাস একযোগে অজিত বাবু কে আক্রমণ করে বলেন, “ওনার নিজের মানসিক বিকৃতি এসে গেছে। উনি বরাবরই মানসিক বিকৃত সম্পন্নদের মতোই মন্তব্য করেন।” জেলা নেতা অরূপ দাস বলেন, “তৃণমূল খুন আর রক্ত ঝরানো রাজনীতি শুরু করেছে। বিধানসভা ভোটের আগে দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে বলেই, এই নোংরা রাজনীতি শুরু করেছে। এর আগে দাঁতনের বিজেপি কর্মী পবন জানা কে মাস চারেক আগেই খুন করেছে তৃণমূল। তারপর বাচ্চু বেরা। মেরে পা ভেঙে গাছে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে, তৃণমূল জেলা সভাপতি বলছে, মানসিক বিকৃতি, আত্মহত্যা এইসব! পুলিশও এই ঘটনাটিকে আত্মহত্যা বলে চালাতে চেয়েছিল! আমরা দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি চাই, কোন কথা শুনতে চাই না।”

thebengalpost.in
বিজেপি জেলা কার্যালয়ে নিহত বিজেপি কর্মীকে শেষ শ্রদ্ধা দলীয় নেতৃত্বের :

.
.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে