আদিবাসী কন্যার ‘ভালোবাসায়’ আপ্লুত অমিত, নেতাদের ‘অনৈক্যে’ ক্ষুব্ধ! রাতের বৈঠকে শোভন-বৈশাখীর উপস্থিতি নতুন মাত্রা যোগ করল

.

দ্য বেঙ্গল পোস্ট বিশেষ প্রতিবেদন, সমীরণ ঘোষ, ৬ নভেম্বর :”চতুরডিহি গ্রামে শ্রী বিভীষণ হাঁসদা জীর বাড়িতে চমৎকার খাবার খাওয়ার সুযোগ পেলাম। কোনো শব্দই তাদের আতিথেয়তা বর্ণনা করতে পারবেনা।” বাঁকুড়া থেকে ফিরে নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এভাবেই চতুরডিহি গ্রামের বিভীষণ হাঁসদা ও তাঁর পরিবারের আতিথেয়তার প্রতি মুগ্ধতা প্রকাশ করেছেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা সর্বভারতীয় বিজেপি’র সর্বোচ্চ নেতা অমিত শাহ। বাঁকুড়া’র রবীন্দ্র ভবনে প্রথম দফার বৈঠক শেষে আদিবাসী অধ্যুষিত গ্রাম চতুরডিহিতে যান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।‌ সঙ্গে ছিলেন, কৈলাস বিজয়বর্গীয়, দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায়, রাহুল সিনহা প্রমুখ। তাঁদের আদিবাসী নৃত্যের মাধ্যমে বরণ করে নেওয়া হয় এবং আদিবাসী রীতিতে পা ধুইয়ে স্বাগত জানানো হয়। এরপর সকলে মিলেই চাটাইয়ের উপর বসে মধ্যাহ্নভোজন সারেন। স্বয়ং, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ তাঁর পাশে গৃহকর্তা বিভীষণ হাঁসদা’কে বসিয়ে তৃপ্তি সহকারে আহার গ্রহণ করেন। ভাত, রুটি, বিউলির ডাল, উচ্ছে ভাজা, আলু পটল, আলু পোস্ত, পোস্তর বড়া, চাটনী, মিষ্টি, পাঁপড় প্রভৃতি আয়োজন করা হয়েছিল। খাওয়া দাওয়ার শেষে উপরি পাওনা হিসেবে আদিবাসী কন্যার কাছ থেকে ‘আন্তরিক ভালবাসা’ও উপহার স্বরূপ পেয়ে গেলেন! নিজেই যখন তোয়ালে দিয়ে হাত ও মুখ মুছছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, ঠিক সেই সময় তাঁর হাত থেকে তোয়ালে নিয়ে, এক আদিবাসী তরুণী অমিত শাহ’র হাত ও মুখ মুছিয়ে দেন‌ যত্ন সহকারে। অমিত জী’র মুখে তখন প্রসন্নতার আলতো হাসি। আর পাশে দাঁড়িয়ে দিলীপ ঘোষ বলছেন, “মায়ের ভালোবাসা!” অমিত শাহ খুশি হয়ে, ওই তরুণী’কে ভালোবেসে ৫০০ টাকা’র একটি নোট উপহার হিসেবে তুলে দেন। ওই তরুণী মন্ত্রী’কে প্রণাম করে। এরপর বিভীষণ হাঁসদা কেও উত্তরীয় পরান অমিত শাহ। তারপর সকলের সাথে ছবি তুলে, তাঁরা পুনরায় ফিরে যান রবীন্দ্র ভবনে। হাঁসদা পরিবারে তখনও এক পরমপ্রাপ্তির আনন্দের রেশ ভেসে বেড়াচ্ছে!। দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ক্ষণিকের জন্য হলেও ‘আপন’ হয়ে গিয়েছিলেন যে!

thebengalpost.in
বিভীষণ হাঁসদা’র পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অমিত শাহ :

.
.
thebengalpost.in
আতিথেয়তায় মুগ্ধ অমিত শাহের টুইট :

এদিকে, রবীন্দ্র ভবনের বৈঠকে অমিত শাহ রাজ্য নেতৃত্ব’কে ২০০ টি আসনের লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দেন। ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়াই করতে বলেন। তফশিলি জাতি ও উপজাতিদের প্রতি বিশেষ নজর দেওয়ার কথা বলেন। এসবের মধ্যেই তাঁর নজরে পড়ল, বিজেপি শিবিরে অনৈক্যের ছবি। বৃহস্পতিবার, রবীন্দ্র ভবনে ভারতমাতার ছবিতে মাল্যদান করার সময় এই চিত্রটি ধরা পড়ে বিভিন্ন ক্যামেরায়। মুকুল রায় যখন ছবিতে মাল্যদান করছেন, ঠিক সেইসময় রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ তাঁর দিকে অনেকটা পিছন ফিরে ছবিতে প্রণাম জানাচ্ছেন! আর, ঠিক এই সময়ই সামনে দাঁড়িয়ে থাকা রাহুল সিনহা রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ’কে সম্পূর্ণ উপেক্ষা করলেন, এমনকি মুখের দিকেও তাকালেননা! এই দৃশ্য স্বয়ং অমিত শাহ এর চোখ এড়িয়ে যায়নি বলেই বিশ্বস্ত সূত্রের খবর। এরপরই, তিনি দ্বিতীয় পর্বের দলীয় বৈঠকে এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং রাজ্য নেতৃত্বকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়াইয়ের পরামর্শ দেন।

thebengalpost.in
অমিত শাহ মধ্যাহ্নভোজনে :

.
thebengalpost.in
বিভীষণ হাঁসদা’কে উত্তরীয় পরিয়ে বরণ করে নিলেন অমিত শাহ :

অন্যদিকে, বাঁকুড়া থেকে ফিরে এ দিন (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যায় কলকাতায় চলে আসেন তিনি। রাতে নিউটাউনের একটি হোটেলে থাকবেন বলে জানা গেছে। সেই হোটেলেই দলীয় নেতৃত্বের সঙ্গে ফের বৈঠক বসেন তিনি। আর এই বৈঠকেই যোগ দিতে দেখা যায়, শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে। রাজ্য রাজনীতিতে যা ফের নতুন মাত্রা যোগ করল বলেই মনে করা হচ্ছে। প্রসঙ্গত, কয়েক সপ্তাহ আগে সল্টলেকে পূর্বাঞ্চলীয় সংস্কৃতি কেন্দ্রে (ইজেডসিসি) দুর্গাপুজোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেও দেখা যায় নি শুভেন্দু-বৈশাখীকে।। মোদী দিল্লি থেকে ভার্চুয়ালি পুজোর উদ্বোধন করেন। রাজ্য বিজেপি-র গোটা নেতৃত্ব সেখানে ছিলেন। ছিলেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্বও। ওই অনুষ্ঠানেও শোভন-বৈশাখীকে আনার জন্য পঞ্চমীর রাত পর্যন্ত চেষ্টা হয়েছিল বিজেপি’র তরফে। অতিথি তালিকাতেও তাঁদের নাম রাখা হয়েছিল। কিন্তু ,শেষ পর্যন্ত সেখানেও তাঁদের দেখা যায়নি। শেষ পর্যন্ত, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের এই সফরে ছবিটা বদলে গেল। বিজেপি নেতৃত্বের উদ্যোগে সাড়া দিয়ে ‘সক্রিয়’ হওয়ার বার্তা দিলেন, শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। বাকিটা সময়ই বলবে!

thebengalpost.in
শোভন-বৈশাখী রাতের বৈঠকে যোগ দিতে এলেন :

thebengalpost.in
শোভন চট্টোপাধ্যায় :

thebengalpost.in
বৈঠকে যোগ দিতে যাচ্ছেন শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় :

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে