রাজ্যের কনটেইনমেন্ট জোনগুলিকেও তিন ভাগে ভাগ, ‘এ’ জোনে ছাড়া সবকিছু খুলবে অন্যত্র : বিশেষ প্রতিবেদন

.

বিশেষ প্রতিবেদন, সুদীপ্তা ঘোষ, ১৮ মে :

.
.

প্রত্যাশামতোই আজ বিকেলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করলেন, চতুর্থ লকডাউনে রাজ্যের জন্য বিশেষ নির্দেশিকা। রাজ্যের কনটেইনমেন্ট জোনগুলিকেও তিন ভাগে, যথাক্রমে -এ, বি ও সি ‘তে ভাগ করে ঘোষণা করলেন ছাড়ের তালিকা। উল্লেখ্য, ‘এ’ জোন হল- সংক্রমিত এলাকা। কিছুই খুলবেনা। লকডাউন হবে কঠোরভাবে। ‘বি’ জোন হল- বাফার জোন। নিয়ম মেনে সবকিছু খুলবে। ‘সি’ জোন হল- ক্লিন জোন। সবকিছুই খুলবে স্বাভাবিক নিয়ম মেনে। তবে, সর্বত্র দূরত্ব বজায় রাখা এবং মাস্ক, স্যানিটাইজার ব্যবহারের কথা বলা হয়েছে।

.

দেখে নিন কি কি ছাড় দিলেন মুখ্যমন্ত্রী?

১. কন্টেইন্টমেন্ট ছাড়া সব এলাকায় বড় দোকান খুলবে ।

২. জোড়-বিজোড় নীতি মেনে ২১ মে থেকে খুলবে হকর্স মার্কেট । পুলিশ পাশ দেবে হকার্স দের।

৩. ২১ মে থেকে আন্তঃজেলা বাস চলাচল শুরু হবে, ২৭ তারিখ থেকে পুলিশের অনুমতি নিয়ে অটো ২ জন করে যাত্রি নিয়ে চালাতে পারবে।

৪. সেলুন ও বিউটি পার্লার খুলবে সোসিয়াল ডিসটেন্স মেনে। একটা কাঁচি ক্ষুর দিয়ে সবার চুল না কাটা এবং বার বার স্যানিটাইজ করার অনুরোধ।

৫. ২১ মে থেকে সব বড় দোকান খুলবে নিয়ম মেনে। বাজার গুল রোজ সেনিটাইজ করতে হবে।

৬. বিভিন্ন জেলার মধ্যে সরকারি বাস চলবে। বেসরকারি বাসও চালাতে অনুরোধ।

৭. রেস্তোরাঁ চালু হবেনা এখন। তবে সামাজিক দূরত্ব মেনে খোলা হবে হোটেল।

৮. খেলাধুলা চলবে, তবে জমায়েত করে নয়।

৯. একদিন অন্তর সরকারি ও বেসরকারি অফিস খুলবে।

১০.সর্বোপরি মুখ্যমন্ত্রী জানালেন, “নাইট কারফিউ নিয়ে মানুষের ভোগান্তি চাইনা। খুব ইমার্জেন্সি ছাড়া কারফিউ ঘোষণা করা যায়না। তবে জমায়েত দেখলে কড়া ব্যবস্থা নেবে পুলিশ।”

.

জেলা থেকে রাজ্য, রাজ্য থেকে দেশ প্রতি মুহূর্তের খবরের আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক বুক পেজ এবং যুক্ত হোন Whatsapp Group টিতে